Home Home Page Rank NTV ONLINE ETV ONLINE BANGLA  VISION ONLINE CHANEL I ONLINE EKATTOR TV ONLINE
২৪-০৭-২০১৪ বৃহস্পতিবার

 ভিজিট করুন মোবাইল ভার্সন:  m.dainiksylhet.com ------সিলেট বিভাগের সর্বাধিক জনপ্রিয় অনলাইন পত্রিকা www. dainiksylhet.com

 
 
 
মোবাইল ভার্সনে যারা আছেন
Free Global Counter
 
এই জনপদ
 
 
 
 
 

সাংবাদিক ইউনিয়ন সিলেট (জাস) এর বার্ষিক সাধারণ সভা এবং মাহে রমজানের  আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিল  বুধবার নগরীর তালতলাস্থ হোটেল ইষ্ট এন্ড এর কন্ফারেন্স হলে অনুষ্ঠিত হয়।
মোঃ নজরুল ইসলাম সিপারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সিলেটের অতিরিক্ত সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ শাহজাহান, সিলেট শহর সমাজ সেবা কর্মকর্তা মোঃ রফিকুল ইসলাম, সিলেট মহানগর গোয়েন্দা শাখার (ওসি) অঞ্জন কুমার পাল, বাংলাদেশ হিউম্যান রাইটস ফাউন্ডেশন সিলেট বিভাগীয় সভাপতি দিলোয়ার হোসেন খান, বিটিবি এল এর  সিলেট বিভাগীয় ইনচার্জ  মোঃ জামাল আহমদ।
সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরীর উপস্থাপনায় অনুষ্ঠিত সভায় সংগঠনের বাজেট পেশ করেন অর্থ সম্পাদক কামরুল হাসান জুলহাস। পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন, জসিম উদ্দীন। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, যুগ্ম সম্পাদক রুহুল ইসলাম মিঠু, কলামিষ্ট শাহেদ হাতিমী, সুনেত্র সম্পাদক আনিসুর রহমান, সহ-সম্পাদক নুরুজ্জামান, অপু দাস, এফ.এম আলী ফয়েজ, সৈয়দ আকরাম আল শাহান, সাজ্জাদ আহমদ সাজু, কয়েস আহমদ সাগর, আলী হোসেন মুরাদ, এফ.এ সাগর প্রমুখ। অনুষ্ঠান শেষে মোনাজাত পরিচালনা করেন, তরুণ লেখক মাওলানা রেজাউল করিম রেজা।  এছাড়া অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, শাহান আহমদ চৌধুরী, সৈয়দ আব্দুল্লাহ আল হাসান, আখতার হোসেন সায়মন, জয়নাল আবেদীন, দিনার আহমদ, এনামুল হক শিকদার, আব্দুর রশীদ, আনিসুর রহমান সুহাগ, আব্দুল কাদের, তানভীর এলাহি মজুমদার, ইব্রাহিম আহমদ উজ্বল, কবির আহমদ, আবু মোঃ খালেদ, আশিকুর রহমান আশিক, শহিদুল ইসলাম, আমিন উদ্দীন, আফতাব উদ্দীন, সাদিক হোসেন, এপলো, অসিত দত্ত পাপ্পু, জালাল আহমদ, মাসুদ রানা, জয়নাল আবেদীন আজাদ, বুরহান উদ্দীন, মকদ্দস আলী, শফিকুল ইসলাম, ঝুনুর মিয়া, প্রমুখ। বিজ্ঞপ্তি
               

 
 
 
 
 
 
 

সিলেট, ২৩ জুলাই:
বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য, ছাতক উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান চৌধুরী মিজান বলেছেন, স্বৈরাচারী শেখ হাসিনার সরকারের পতন ঘটাতে জাতীয়তাবাদী শক্তিকে ঐকবদ্ধ হতে হবে। গণতন্ত্র পুনপ্রতিষ্ঠা এবং গণতান্ত্রিক অধিকার আদায়ে সকল ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে ইস্পাত কঠিন ঐক্য গড়ে তুলতে হবে। স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশে ক্ষমতাসীন স্বৈরাচারী এ সরকারের বিদায় ঘন্টা বাজানোর জন্য আপামোর জনসাধারণ অপেক্ষমান। এ জন্য সকল স্তরের নেতাকর্মীদের ঈদ পরবর্তী আন্দোলন কর্মসূচীতে স্বক্রিয়ভাবে অংশ গ্রহণ করতে হবে। তিনি বলেন, পবিত্র রমজান মাস আমাদেরকে ত্যাগের শিক্ষা দেয়। এই ত্যাগের শিক্ষাকে কাজে লাগিয়ে মাটি ও মানুষের কল্যাণে সকলকে আত্মনিয়োগ করতে হবে।
তিনি  বুধবার বিকেলে ছাতক উপজেলা বিএনপি নেতা জি.এম আজম এর উদ্যোগে স্থানীয় কালারুকা হাসপাতাল মাঠে কালারুকা ইউনিয়নবাসীর সম্মানে সাতপাড়া এলাকাবাসী আয়োজিত ইফতার পূর্ব আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। এলাকার বিশিষ্ট মুরব্বী আমিরুল হক এর সভাপতিত্বে এবং ইউনিয়ন যুবদলের যুগ্ম আহ্বায়ক রইছ উদ্দিন ও জসিম ফারহান এর যৌথ পরিচালনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন ছাতক উপজেলা বিএনপি নেতা জি.এম আজম।
বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা বিএনপির সভাপতি ফারুক আহমদ, সাধারণ সম্পাদক ও খুরমা ইউনিয়নের পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিন, ছাতক ডিগ্রি কলেজের অধ্যাপক শামসুল হক তালুকদার, উপজেলা বিএনপি নেতা মানিক মিয়া, জাহিক মিয়া, উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য মাসুক আহমদ, ছাত্রদলের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক মুজাহিদুল হক হিরা, যুগ্ম আহবায়ক সেলিম আহমদ, বিশিষ্ট মুরব্বী মানিক মিয়া, আলাউদ্দিন, কামাল উদ্দিন, বাবুল হোসেন, ফয়জুর রহমান, আব্দুল কাইয়ুম, চাঁন মিয়া, শাহিন মিয়া, মসুদ আহমদ, কাদির মিয়া, আনোয়ার মিয়া, জামাল উদ্দিন, ছাতক ইউনিয়ন পরিষদের সচিব আলাউদ্দিন, কালারুকা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য শফিক উদ্দিন, কালারুকা ইউনিয়ন বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ছালেহ আহমদ, বিএনপি নেতা হারুন আহমদ, মতিন আহমদ, শামসুল, শাহ নেওয়াজ, ছায়েম আহমদ, ইউনিয়ন যুবদলের আহ্বায়ক সাজ্জাদুর রহমান প্রমুখ। দোয়া পরিচালনা করেন কালারুকা মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা মতিউর রহমান। বিজ্ঞপ্তি

 
 
 
 
 
 
 

সিলেট, ২৩ জুলাই:
দক্ষিণ সুরমার কদমতলী এলাকা থেকে চালক সহ ছিনতাই হওয়া অটোরিক্সা সিএনজি (সিলেট-থ ১২-৪৭২৯) মঙ্গলবার রাতে হবিগঞ্জ জেলার শায়েস্তাগঞ্জ বাজারের ওলিপুর গেইটস্থ পূর্ণাখলা বাজার থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। এ সময় গাড়ীর মালিক সিলেট সিটি কর্পোরেশনের ২৬ নং ওয়ার্ডের কদমতলী এলাকার মৃত মশাইদ আলীর ছেলে আব্দুল হাই, ওসমানী নগর থানার এসআই আনোয়ার হোসেন, সাইফুল ইসলাম সহ নিহত চালকের ভাই এবং স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
জানা যায়, গত সোমবার গভীর রাতে পূর্ণখলা বাজারের ব্যবসায়ীরা একটি অটোরিক্সা সিএনজি রাস্তার পাশে পরিত্যাক্ত অবস্থায় দেখতে পায়। স্থানীয় জনসাধারণের মাধ্যমে খবর পেয়ে গাড়ীর মালিক মঙ্গলবার বিকেলেই হবিগঞ্জ যান এবং গাড়ীটি তার নিশ্চিত করে উদ্ধার করে নিয়ে আসেন।
উল্লেখ্য, দক্ষিণ সুরমার চান্দাইর মৃত তাজুল ইসলামের ছেলে অটোরিক্সা সিএনজি চালক কয়েছ প্রতিদিনের মতো গত শুক্রবার সকাল ১০ টায় গাড়ী নিয়ে বাড়ী থেকে বেরিয়ে গেলেও তাকে আর খোজেঁ পাওয়া যায়নি। কয়েছের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি বন্ধ পাওয়া গেলে সন্দেহ আরো ঘণিভূত হয়। পরে চারিদিকে কয়েছের সন্ধান করে না পেয়ে ওসমানীনগর উপজেলার বুরুঙ্গা ইউনিয়নের পূর্ব তিলপাড়া এলাকা থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় উদ্ধারকৃত লাশের পরিচয় নিশ্চিত করতে সেখানে যান। কিন্তু এর আগেই কয়েছের লাশ বেওয়ারিশ লাশ হিসেবে মানিক পীর টিলায় দাফন করা হয়েছে। এ ব্যাপারে কয়েছের ভাই লেছু মিয়া অজ্ঞাতনামাদের আসামী করে ওসমানী নগর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং- ১৯, তারিখ ২০/০৭/১৪ইং।
এ ব্যাপারে ওসমানীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জুবের আহমদ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, স্থানীয়রা খবর দিলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে এবং ছিনতাই হওয়া সিএনজি হবিগঞ্জ থেকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে, তবে খুনিদের খোঁজে বের করতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। বিজ্ঞপ্তি
           

 
 
 
 
 
 
 

বিশ্বনাথে আসামী গ্রেফতারের দাবীতে সিলেটের পুলিশ সুপার বরাবরে ধর্ষিতার পিতা স্মারকলিপি প্রদান করেছেন। বুধবার দুপুরে সিলেটের পুলিশ সুপার নূরে আলম মিনা পিপিএম বরাবরে এ স্মারকলিপি পেশ করেন ফজর আলী। এ সময় ফজর আলী সহ নিকট আত্মীয়রা উপস্থিত ছিলেন। স্মারকলিপি সূত্রে জানা যায়, বিশ্বনাথ উপজেলার তালিবপুর গ্রামের অসহায় গরীব ফজর আলীর বড় মেয়ে রেছনা বেগম (২২)কে গত ১৫/০৬/২০১৪ইং তারিখে সন্ধ্যার সময় বাড়ীর পুকুরে পা ধৌত করার সময় একই গ্রামের কাছিব আলীর ছেলে জয়নাল আবেদীন (৩০) ও রুস্তুম আলীর ছেলে বাবুল (৩২) জোরপূর্বক উঠিয়ে নিয়ে যায়। এ সময় রেছনা বাধা দিলে জয়নাল আবেদীন তাকে চাকু দেখিয়ে খুন করার হুমকী দেয়। রেছনাকে জয়নাল তার এক আত্মীয় বাসায় নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এরপর রেছনাকে সেখান থেকে বাবুল সহ আর ৩/৪ জনের সহযোগিতায় আটোরিক্সা (সিএনজি) যোগে হইদপুর কামালবাজার সুলেমান ড্রাইভার বাড়ীতে নিয়ে য়ায় এবং সেখানে জয়নাল আবেদীন জোরপূর্বক রাতভর ধর্ষণ করে।
পরদিন ১৬/০৬/১৪ই ছাতক থানা গোবিন্দগঞ্জ আসামী জয়নাল আবেদীনের আত্মীয়ের বাড়ীতে নিয়ে যায়। সেখানে ৪ দিন ৪ রাত রেছনাকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে একাধীকবার ধর্ষণ করে। ৪ দিন পর ২১/০৬/১৪ইং গ্রামের মুরব্বীয়ানদের সহযোগিতায় রেছনা বেগম উদ্ধার হয়। বিষয়টি এলাকার মুরব্বীগণ আপোষ মীমাংসার চেষ্টা করে ব্যর্থ হলে মেয়ের পিতা বিশ্বনাথ থানায় মামলা করতে গেলে থানার ওসি মামলা নেয়নি। তবে একটি সাধারণ ডায়েরী করেন। নিরুপায় হয়ে সিলেট আদালতে রেছনাকে বাদী করে নারী ও শিশু নির্যাতন আদালতে ২ জনকে আসামী আর ৩/৪জনকে অজ্ঞাত করে মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-২২৬ তাং ২৯-০৬-২০১৪ইং।
মামলা পরিপ্রেক্ষিতে আদালত থেকে বিষয়টি তদন্তের জন্য বিশ্বনাথ থানা প্রেরণ করা হয়। বিশ্বনাথ থানার এস.আই মোঃ দেলওয়ার হোসেন গত ১১/০৭/১৪ইং তারিখে সরেজমিনে তদন্ত শেষে গত ১৪/০৭/১৪ইং তারিখে ভিকটিম রেছনা বেগমকে মেডিকেল পরীক্ষার জন্য সিলেট এম.এ.জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। মামলা দায়েরের পর আসামী গ্রেফতারে পুলিশের নিষ্ক্রিয়তা ধর্ষিতার পুরো পরিবারকে অনশ্চিয়তার মধ্যে ফেলে দিয়েছে। আসামীরা প্রভাবশালী হওয়ার কারণে তাদেরকে সময় শংকিত হয়ে চলাচল করতে হচ্ছে। শুধু তাই নয় টাকা না দেয়ার জন্য মেডিকেল রিপোর্ট তদন্তকারী পুলিশ কর্মকর্তা এখনো রিপোর্ট জমা দেয়নি সংশ্লিষ্ট থানায়। মামলা দায়েরের পর থেকে আসামী জয়নালের ভাই আহমদ ও আহাদ মামলা তুলে নেয়ার জন্য বিভিন্ন ভাবে হুমকী প্রদান করছে।
এমতাবস্থায় ধর্ষিতা রেছনার পিতা তার মেয়ে সহ পরিবারের সদস্যদের পুরোপরি নিরাপত্তা প্রদান সহ আসামী গ্রেফতারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন।
               

 
 
 
 
 
 
 

দিরাই উপজেলা সংবাদদাতা :
বখাটেদের অত্যাচারে দিরাইয়ে লেখাপড়া বন্ধ করে নিজ গ্রাম ছেড়ে আত্মীয়ের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছে দিরাই ডিগ্রী কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির এক ছাত্রী। জানা গেছে, উপজেলার তাড়ল ইউনিয়নের রামপুর গ্রামের মৃত জিতু মিয়ার বখাটে ছেলে শাহানুর একই গ্রামের রফু মিয়ার কলেজ পড়–য়া মেয়েকে প্রেমের প্রস্তাব দিলে মেয়েটি তা প্রত্যাখান করলে বখাটে শাহানুর তার পেছনে উঠেপড়ে লেগে যায় এবং মেয়েটি কলেজে আসা-যাওয়ার সময় অশ্লীল কথাবার্তা বলে উত্ত্যক্ত করতে থাকে, বখাটে ছেলের এহেন আচরণে তার কলেজে যাওয়া বন্ধ রয়েছে। এ ব্যাপারে ওই কলেজ ছাত্রী ২০ জুলাই দিরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলতাফ হোসেনের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলতাফ হোসন বলেন, লোকজন নেই, ঈদের পর অ্যাকশনে যাবো। মেয়ের বাবা রফু মিয়া বলেন, আমি গরিব মানুষ, অনেক আশা করে মেয়েকে কলেজে ভর্তি করেছিলাম, লম্পট শাহানুরের অত্যাচারে কারণে তার লেখাপড়ায় ব্যঘাত ঘটছে, তার অত্যাচারে মেয়েটাকে সাকিতপুর গ্রামে আমার বোনের বাড়িতে রেখে এসেছি। মেয়ের চাচাতো ভাই সালাউদ্দিন জানান, শালিরগাঁও গ্রামের রব্বস মিয়ার কলেজে পড়–য়া এক মেয়েকে বখাটে শাহানুর উত্ত্যক্ত করতো, তার অত্যাচারের কারণে লেখাপড়া ছাড়তে বাধ্য হয়ে মেয়েটি মান সম্মানের ভয়ে রব্বস মিয়া তার মেয়েকে গোপনে বিয়ে দেন। কিছুদিন আগে শাহনুর ডাকাতির মামলায় দেড় মাস জেল খেটেছে বলেও জানান তিনি।

               

 
 
 
 
 
 
 

দিরাই উপজেলা সংবাদদাতা ;
দিরাইয়ে সামিরা বেগম (২২) নামে এক গৃহবধূর মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে, সে উপজেলার অনন্তপুর গ্রামের আইজুল হকের স্ত্রী। মঙ্গবার রাত স্বামী আইজুল হক তার স্ত্রী সামিরা বেগমকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে বলে তার শ্বশুড় বাড়ির লোকজন অভিযোগ করেন। রাত ৯টার দিকে গৃহবধু সামিরা বেগমের স্বামী ও শ্বশুড়-শ্বাশুড়ি দিরাই হাসপাতালে ভর্তি করে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে দিরাই থানা পুলিশ হাসপাতাল থেকে লাশ উদ্ধার করে। জানা যায়, অনন্তপুর গ্রামের আইজুল হকের সাথে কালিনগর গ্রামের আবদুল শাহিদের মেয়ে সামিরা বেগমের গত এক বছর আগে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে ঝগড়া হতো, মঙ্গলবার রাতে সামিরার গলায় রশি ঝুঁলানো লাশ নিয়ে দিরাই হাসপাতালে আসেন তার স্বামী ও শ্বশুড় শ্বাশুড়ী, পরে তাকে হাসপাতালে রেখেই তারা পালিয়ে যান। গৃহবধুর মা শরফুল বেগম বলেন, বিয়ের পরই আমার মেয়েকে মারধর করতো, মঙ্গলবারও তার স্বামী তাকে মারধর করে ফাঁস দিয়ে ঝুঁলিয়ে রেখেছে, পরে হাসপাতালে রেখে পালিয়ে গেছে। গৃহবধুর চাচাতো ভাই জুয়েল মিয়া বলেন, তিন দিন আগে তাদের বাড়িতে ইফতারি পাঠিয়েছি, ইফতারি কম হয়েছে বলে তাকে মারধর করছে তার স্বামী, আমার বোনকে তারা মেরে হাসপাতালে রেখে পালিয়ে গেছে। আইজুলের প্রতিবেশিরা জানান, স্বামীর সাথে অভিমান করে গৃহবধু সামিরা আত্মহত্যা করেছে, জীবিত মনে করে তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসার পর সে মারা গেলে ভয়ে স্বামীসহ পরিবারের লোকজন পালিয় যায়। দিরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বায়েছ আলম বলেন, হাসপাতাল থেকে গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।
               

 
 
 
 
 
 
 

কাজী জমিরুল ইসলাম মমতাজ , সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ
বেতন ভাতা ঠিকমতো উত্তোলন করলেও সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালের ডাক্তার মোঃ মুনিরুজ্জামান যোগদানের পর থেকে কর্মস্থলে দীর্ঘ ৯ মাস ধরে অনুপস্থিত রয়েছেন । সদর হাসপাতালের সাবেক সিভিল সার্জন ও হাসপাতালের এক অফিস সহকারীকে ম্যানেজ করে টানা সাত মাসের ও বেশী সময় ধরে তিনি কর্মস্থলে অনুপস্থিত থেকে অবৈধভাবে বেতন ভাতা উত্তোলন করে নিচ্ছেন ঐ ডাক্তার। তবে গত ৬ জুন থেকে নতুন সিভিল সার্জন হিসেবে নিশিত নন্দী মজুমদার যোগদানের পর হাসপাতালে অনুপস্থিত থেকে বেতন-ভাতা উত্তোলন করায় তাকে শোকজ করে বেতন বন্ধ করে দেওয়া দিয়েছেন বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়। শোকজ পাঠানো হলেও এখনো ডাক্তার এর জবাব দেননি।
সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসকের কার্যালয় সূত্রে জানা যায় ২০১৩ সালের নভেম্বর মাসে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে জুনিয়র চক্ষু বিশেষজ্ঞ হিসেবে যোগদান করেন ডাক্তার মোঃ মুনিরুজ্জামান। যোগদান করেই তিনি ২৮ দিনের একটি ক¤িপউটার প্রশিক্ষণের ছুটি নিয়ে চলে যাওয়ার পর এখন পর্যন্ত কর্মক্ষেত্রে অনুপস্থিত রয়েছেন। হাসপাতালে যোগদানের পর প্রায় ৩ বার তাকে শোকজ পাঠানো হয়েছে। চলতি বছরের ১৫ ফেব্র“য়ারি গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের স্বাস্থ্য উপদেষ্ঠা সুনামগঞ্জ আসলে সুনামগঞ্জের সচেতন মহলের লোকজন এই ডাক্তারসহ যারা হাসপাতালে দীর্ঘদিন ধরে কর্মস্থলে অনুপস্থিত রয়েছেন তাদের বিরুদ্ধে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে উপদেষ্টার প্রতি অনুরোধ জানান।  এ সময় স্বাস্থ্য উপদেষ্টা উপস্থিত সুশীল সমাজের লোকজনকেও আশ্বস্থ করেন। কিন্তু তার পরও ডাক্তার হাসপাতালে অনুপস্থিত রয়েছেন। গত বছরের নভেম্বরে যোগদান করে গত মে মাস পর্যন্ত অনুপস্থিত থাকার পরও সাবেক সিভিল সার্জন ডা. এটিএম রকিব চৌধুরী ও হাসপাতালের প্রধান অফিস সহকারি ইকবাল আহমেদকে উ॥কোচ দিয়ে তিনি নিয়মিত বেতন ভাতা উত্তোলন করছিলেন বলে জানা যায় । হাসপাতালের হাজিরা খাতায় দেখা গেছে যোগদানের পর দিন থেকেই ডাক্তার অনুপস্থিত রয়েছেন। জানা গেছে তিনি ঢাকায় বিভিন্ন ক্লিনিক ও প্রাইভেট চেম্বারে নিয়মিত প্রাকট্রিস করছেন। 
এ ব্যাপারে হাসপাতালের প্রধান অফিস সহকারি ইকবাল আহমেদ বলেন, প্রথম শ্রেণীর কর্মকর্তারা নিজেদের বেতন ভাতার বিল নিজেই করেন। তাই তিনি কখন বিল তোলেন সেটা আমার জানা কথা নয় তিনি ভালো বলতে পারবেন। হাসপাতালের কতজন স্টাফ প্রতি মাসে বেতন তোলেন তার হিসেব অফিস সংরক্ষণ রয়েছে- এ বিষয়ে তার কাছে জানতে চাইলে ইকবাল আহমেদ কোন জবাব দেননি। অভিযোগ রয়েছে তিনি  এখানকার স্থানীয় হওয়ায় প্রভাব খাটিয়ে ইকবাল আহমেদ হাসপাতালে তার স্ত্রী, বোনসহ পরিবারের একাধিকজনকে চাকুরি দিয়েছেন। গত বছর তাকে দুর্নীতির কারণে বদলি করা হলেও তিনি উচ্চ আদালতে উর্ধতন কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে রিট করে এখনো বহাল রয়েছেন। 
এ ব্যাপারে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ডা. এসহান উজ জামান খাঁন বলেন, ডাক্তার মুনিরুজ্জামানকে একাধিকবার শোকজ করা হয়েছে। কেন তিনি যোগদান করছেন না তার ব্যাখ্যা চাওয়া হলেও তিনি কোনটিরই জবাব দেননি।
এ ব্যাপারে সুনামগঞ্জ সিভিল সার্জন ডাক্তার নিশিত নন্দী মজুমদার বলেন, গত জুন মাসে আমি হাসপাতালে যোগদানের পর ডাক্তার মুনিরুজ্জামানকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়ে তার বেতন ভাতা বন্ধ করে দিয়েছি। এখন তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নিতে উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ জানাব। 
ব্যাপারে অভিযুক্ত ডাক্তার মুনিরুজ্জামানের মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হেেলও তিনি ফোন রিসিভ না করায় তার অনুভূতি জানা সম্ভব হয়নি।

 
 
 
 
 
 
 

শাবি প্রতিনিধি:
পবিত্র শব-ই কদর ও ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষ্যে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে বুধবার থেকে ঈদের ছুটি শুরু হচ্ছে । বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মো. ইশফাকুল হোসেন স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।
ছুটি উপলক্ষ্যে ২৩ জুলাই, বুধবার থেকে ৫ আগস্ট, মঙ্গলবার পর্যন্ত সকল প্রশাসনিক ও একাডেমিক কার্যক্রম বন্ধ থাকবে বলে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়। ছুটি শেষে ৬ আগস্ট, বুধবার থেকে কার্যক্রম সকল প্রশাসনিক ও একাডেমিক কার্যক্রম শুরু হবে বলেও জানানো হয়।
এদিকে ছুটি উপলক্ষ্যে এরই মধ্যে আবাসিক হল ও মেস ছাড়তে শুরু করেছে শিক্ষার্থীরা।
               

 
 
 
 
 
 
 

ওসমানীনগর(সিলেট)প্রতিনিধি:
সিলেটের ওসমানীনগরে দুপক্ষের মুখোমুখি সংঘর্ষে  ইউপি সদস্য সহ কমপেক্ষে ১২ জন আহত হয়েছেন। রোববার রাতে উপজেলার পশ্চিম মোবারকপুর গ্রামে দু-পক্ষের লোকজনের মধ্যে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে আশপাশ এলাকার লোকজন ও থানা পুলিশ ঘটনাস্তলে উপস্থিত হয়ে  উত্তপ্ত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হলেও এখনও দু-পক্ষের লোকজনের মধ্যে তুমুল উত্তেজনা বিরাজ করছে। আবারও যেকোন সময় ঘটতে অনাকাংখিত ঘটনা এমন আশংকা প্রকাশ করেছেন স্থানীয়  এলাকাবাসী। তবে ওসমানীনগর থানার ওসি  জুবের আহমদ বলেছেন বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত কোন এক পক্ষের অভিযোগ পাওয়ার তদন্তের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 
এদিকে আহতদের চিকিৎসার জন্য সিলেট ওসমানী হাসপাতাল ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। সুত্র জানায়, উপজেলার পশ্চিম মোবারকপুর গ্রামের  সাবেক মেম্বার নুরুল ইসলামের লোকজন পুর্ব বিরোদের জের ধরে সন্ধা সাড়ে ৭ টার দিকে পার্শ্ববতী বাড়ীর ছালেহ আহমদ নামের এক যুবকের কাছ থেকে টাকা পয়সা লুটে তাকে পিঠিয়ে আহত করে। ঘটনাটি  ছালেহ আহমদের লোকজনের মধ্যে জানাযানি হলে পরবর্তীতে  এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাত সাড়ে ১০ টার দিকে দু-পক্ষের সংঘর্ষ হলে এসময় ইউপি সদস্য আব্দুল হাই (৪৮) সহ কমপক্ষে ১২ জন আহত হন। আহতদের মধ্যে ছালেহ আহমদ(৩৮),মাহবুব (১৮) সমছু মিয়া (৪০) জাকারিয়া(২২) মিজান (১৮) আছাবুর রহমান(৬০) আব্দুছ ছালাম (৫৫) জামাল (২২) বাতির(৩২) ও ফখরুল(২০) উল্লেখযোগ্য। 

 
 
 
 
 
 
 

সাইফুর এম রেফুল ওসমানীনগর(সিলেট):
সিলেটের ওসমানীনগরে নিখোঁজ হওয়া এক শিশু, কিশোরী ও বৃদ্ধের সন্ধ্যান মিলেনি আজও। এখনও জানাযায়নি তাদের অবস্থান,কোথায় এবং কেমন আছেন জীবিত না মৃত। প্রতিদিন তাদের প্রতিক্ষায় পথ চেয়ে বসে আছেন তাদের আতœীয় স্বজন  পরিবারবর্গ। নিখোঁজ ব্যাক্তিদ্বয়ের পরিবার গুলোতে প্রতিনিয়িত চরম হতাশা বিরাজ করছে। নিখোঁজরা হচ্ছেন, শিশু স্নিগ্ধা দেব জয়ী (৪), স্কুল ছাত্রী পান্না মালাকার (১৬) ও বৃদ্ধ গৌছ মিয়া (৬০)। এদিকে নিখোঁজদের উদ্ধারের ব্যাপারে ওসমানীনগর থানা পুলিশের কোন মাথা ব্যাথা নেই। এছাড়া  নিখোজ তিন জনের একজন বৃদ্ধা গৌছ মিয়ার  ব্যাপারে পুলিশ অবগত নয়,তবে স্কুল ছাত্রী পান্না মালাকার  প্রেম ঘটিত কারনে পালিয়ে ঘর থেকে পালিয়েছে বলে পুলিশ দাবি করেছে।
নিখোঁজদের পরিবার ছাড়াও বিভিন্ন সুত্র জানায়,  উপজেলার রাজচন্দ্র সরকারী  প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক সন্তেষ দেব ও সিলেট জেলা প্রশাষক কার্যালয়ের অফিস সহকারি সর্বাণী দে তুলির শিশুকন্যা স্নিগ্ধা দেব জয়ী (৪) গত ২০১৩ সালের ২১ জুলাই তার মামা বিজন বিহারী দামের নগরীর শেখঘাট ভাঙ্গাটিকর পাড়া নবীন ৩৪/৩ বাসা থেকে সে নিখোঁজ হয়। ঐদিন রাতেই সিলেট কতোয়ালী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়। ডায়েরি নং ১১৫১। আজ পর্যন্ত তার সন্ধ্যান মিলেনি। প্রথম  দিকে পুলিশ তৎপর থাকলেও ১ মাসের মাথায় তৎপরতা বন্ধ হয়ে যায়। স্নিগ্ধার পিতা কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন, আমি জানি না আমার সন্তান এখন কেমন আছে, কোথায় আছে। মা সর্বানী জানান, প্রশাসনের বিভিন্ন বিভাগে ধর্ণা দিয়ে কোন ফল পাইনি। আমি জানি না আমাদের সবার নয়নের মনি স্নিগ্ধা কোথায় আছে-কেমন আছে।
চলতি বছর ১৪ মে এস,এস,সি উত্তীর্ণ পান্না মালাকার নামের কিশোরী  নিখোঁজ হয়। তার নিখোঁজের পেছনে প্রেম সংক্রান্ত বিষয় থাকতে পারে বলে ধারণা করছেন অনেকে। তবে পান্নার বাড়িতে গেলে এলাকার লোকজন জানান,পান্না ভাল মেয়ে, সে পালিয়ে যেতে পারে না। স্কুলে যাওয়ার পথে  প্রতারক চক্রের খপ্পড়ে পড়ে সে অপহৃত হয়েছে। এর পূর্বেও খুজগীর উচ্চ বিদ্যালয়ের দুই ছাত্রী প্রতারক চক্রের হাতে অপহৃত হয়েছিল। পান্নার বড় বোন জানান পরিবারের কারো সাথে কোন দিন একটু ঝগড়াও করেনি। তার ব্যাক্তিগত কোন মোবাইল ফোন ছিল না। আমাদের ফোন দিয়ে কারও সাথে কখনো কথা বলতো না। নিশ্চয় পান্না কোন প্রতারক চক্রের খপ্পরে পরে অপহৃত হয়েছে। আমরা তার সন্ধান চাই ।
গত ২২ মে সকাল  ১১ টার দিকে ওসমানীনগরের ৬০ বছরের বৃদ্ধ গৌছ মিয়া নিখোঁজ হন। এ ব্যাপারে ওসমানীনগর থানায় সাধারণ ডায়েরী করা হলেও থানা পুলিশ তাঁকে উদ্ধারে নিস্কৃয় বলে অভিযোগ রয়েছে। আজ বৃদ্ধের সন্ধান পাওয়া যাচ্ছে না। এ ব্যাপারে সিলেটের অতিরিক্ত ডিআইজি সাওখাত হোসেন বলেন, বিভিন্ন প্রচার মাধ্যম সূত্রে আমরা ব্যাপারটি জেনেছি এবং উদ্ধারে পুলিশি তৎপরতার প্রতিবেদন দাখিলের জন্য সংশ্লিষ্ট থানার ওসিকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
               

 
 
 
জনমত জরিপ

তিস্তা অভিমুখে লংমার্চ করে বিএনপি কি রাজনৈতিক ভাবে লাভমান হয়েছে?

 
হ্যাঁ না
 
 

ফলাফল দেখুন

 
 

মুহিত চৌধুরী:
আরিফুল হক চৌধুরী, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের জনপ্রিয় মেয়র এবং বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা। চারদলীয় জোট সরকারের আমলে তিনি ছিলেন বেশ আলোচিত সমালোচিত। ছিলো দুর্দান্ত প্রভাব-পতিপত্তি। অনেকটা মন্ত্রীর পদমর্যাদা নিয়ে চলাচলা করতেন বলেও সে সময় কেউ কেউ অভিযোগ করতেন।
তৎকালীন অর্থ ও পরিকল্পনা মন্ত্রী এম. সাইফুর রহমানের খুব ঘনিষ্টজন তিনি ছিলেন। নিজের ব্যক্তিগত সম্পর্ক এবং প্রভাবকে কাজে লাগিয়ে সে সময় আরিফুল হক চৌধুরী সিলেট মহানগরে ব্যাপক উন্নয়ন কাজ করেন। রাস্তা প্রশস্তকরণ, এসএস পাইপ এর রেলিং স্থাপন ইত্যাদি করে তিনি সিলেট মহানগরের চেহারা পাল্টে দেন।
আসে ওয়ান ইলেভেন, জাতীয় নেতৃবৃন্দের সাথে আরিফুল হক চৌধুরীকেও আটক করা হয় দুর্নীতির অভিযোগে। তাঁর বিরুদ্ধে উত্থাপিত দুর্নীতির অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় মহামান্য আদালতের নির্দেশে তিনি কারাগার থেকে মুক্তি পান।
আরিফুল হক চৌধুরীর বটবৃক্ষ সিলেটের মাটি ও মানুষের নেতা এম. সাইফুর রহমান সড়ক দুর্ঘটনায় ইন্তেকাল করেন। অন্যদিকে আওয়ামী লীগ নবম সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে ক্ষমতায় চলে আসে। আরিফুল হক চৌধুরী অনেকটা প্রতিকূল পরিস্থিতিতে পড়ে যান।
তাঁর প্রভাব এবং জনপ্রিয়তা একেবারে তলানিতে নেমে আসে। স্থানীয় বিএনপিতেও তিনি কোণঠাসা হয়ে পড়েন। তবে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের সাথে তার নিয়মিত যোগাযোগ ছিল। সময়ের কিছুটা ব্যবধানে তিনি অনেকটা নিরবে নিবৃত্তে চলে যান। পরবর্তীতে আসে সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন। ১৮ দলীয় জোট তাকে সমর্থন দেয়। জনগণ তার অতীত কর্মকাণ্ডকে মূল্যায়ন করে বিপুল ভোটে বিজয়ী করে। সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়রের দায়িত্ব নেবার পরপর শুরু করেন নতুন উদ্দ্যোমে নগর উন্নয়ন। ফুটপাত থেকে হকার উচ্ছেদ, ছড়া এবং খাল উদ্ধারসহ তাঁর বেশ কিছু উন্নয়নমূলক কাজ নগরবাসীর দৃষ্টি কাড়ে। নির্বাচনের পূর্বে দেয়া প্রতিশ্র“তি বাস্তবায়নে আরিফ ছুটে বেড়ান নগরের এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্তে। রোদে জ্বলে বৃষ্টিতে ভিজে তদারক করেন উন্নয়ন কর্মকাণ্ড। গভীর রাতে যখন নগরবাসী ঘুমে আরিফুল হক চৌধুরী তখন ময়লা নিষ্কাষণ কর্মীদের কাজ তদারকীতে ব্যস্ত।
ছড়া এবং খাল উদ্ধার, সংস্কার ও ড্রেনেজ নিয়মিত পরিস্কার করার ফলে এ বছর সিলেটের জলাবদ্ধতা হয়নি এবং নগরবাসী মশার উপদ্রব থেকে অনেকটা রেহাই পেয়েছে।
উন্নয়নে দক্ষতা, ভূমিকা এবং পরিশ্রমের কারণে আরিফুল হক চৌধুরী আবার উঠে এসেছেন আলোচনায়। দেশের প্রধান প্রধান দৈনিকগুলো তাকে নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করে। আরিফুল হক চৌধুরীর এই ইউটার্ন দেখে নগরবাসী অভিভূত।

সিলেট মহানগরকে একটি আধুনিক ও পর্যটন নগরী হিসেবে গড়ে তোলার জন্য স্বল্পমেয়াদী, মধ্যমেয়াদী এবং দীর্ঘমেয়াদী বেশ কিছু পরিকল্পনা তিনি হাতে নিয়েছেন
চলমান ও স্বল্পমেয়াদী
সিলেট সিটি কর্পোরেশনের অবকাঠামো উন্নয়ন ও সম্প্রসারণ প্রকল্প এর আওতায় রাস্তা, ড্রেন নির্মাণ ও উন্নয়ন. সিলেট সিটি কর্পোরেশনের অনুন্নত এলাকার রাস্তা, ড্রেন ও কালভার্ট ও রিটেনিং ওয়াল নির্মাণ,
টি টুয়েন্টি বিশ্বকাপ উপলক্ষে নগরীর প্রধান প্রধান সড়কের ফুটপাতে পেভিং ব্লক স্থাপন, এসএসপাইপ স্থাপন ও মেরামত, লাইট স্থাপন, রিক্সা চলাচলের লেন স্থাপন,
ভোলানন্দ নৈশ বিদ্যালয়ের ভবন সম্প্রসারণ,
বাগবাড়ী সিটি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবনের উপরিভাগ সম্প্রসারণ প্রকল্প,
ধোপাদিঘীরপাড় এলাকার ১টি মসজিদ নির্মান প্রকল্প, নগরীর জলাবদ্ধতা হ্রাসকরণ প্রকল্প,
সিলেট মহানগরীর পানি সরবরাহ প্রকল্প,
উৎপাদক নলকুপ স্থাপন প্রকল্প, পানির লাইন স্থাপন প্রকল্প,
ইউপিইএইচসিডি প্রকল্প, চারটি সেকেন্ডারী ট্রান্সফার স্টেশন নির্মান প্রপকল্প,
নগর অংশীদারিত্বেও মাধ্যমে দারিদ্র দূরীকরণ প্রকল্প, আরবান প্রাইমারী হেলথ কেয়ার সার্ভিসেস ডেলিভারী প্রকল্প, নগরীর বস্তিসমূহের উন্নয়ন প্রকল্প, কসাইখানা নির্মানের জন্য ভুমি ক্রয়, প্রাইমারী ড্রেনেজ ব্যবস্থা, নগর ভবন নির্মাণ ও যন্ত্রপাতি সরবরাহ প্রকল্প।

মধ্যমেয়াদী
দক্ষিণ সুরমায় ট্রাক নির্মান প্রকল্প, বিভিন্ন ছড়া খনন ও প্রতিবন্ধকতা অপসারণ প্রকল্প, দক্ষিণ সুরমা পার্কে রাইড স্থাপন প্রকল্প, ইউএনডিপির অর্থায়নে সিডিএমপি ফেইজ-২ আওতায় ঝুকি হ্রাসকরণ প্রকল্প, সিটি কর্পোরেশনের অবকাঠামো উন্নয়ন তথা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার নির্মান, ডিভাইডার, ফুটব্রীজ, রেলিং স্থাপন ও সৌন্দর্য্যবর্ধন প্রকল্প,
হযরত গাজী বুরহান উদ্দিন (রহ.) মাজার অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প,
 সিলেট সিটি কর্পোরেশনের নিজস্ব স্টাফ কোয়ার্টার নির্মান ও সংস্কার, ঢাকায় সিলেট সিটি কর্পোরেশনের ফ্ল্যাট ক্রয়, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের যানবাহন রক্ষায় গ্যারেজ নির্মাণ, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের যানবাহন রক্ষনাবেক্ষনে ওয়ার্কশপ নির্মাণ, নাগরিক নিরাপত্তার জন্য গুরুত্বপূর্ন রাস্তায় সিসি ক্যামেরা স্থাপন,  ট্রাফিক সিগনালিং প্রকল্প, মিউনিসিপ্যাল গর্ভনেন্স এন্ড সার্ভিসেস প্রকল্প

দীর্ঘমেয়াদী
বর্জ্য ব্যবস্থাপনা আধুনিকায়ন প্রকল্প, বিভিন্ন উন্নয়ন কাজে জমি অধিগ্রহন, ২৭টি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর গণের স্থায়ী অফিস স্থাপন প্রকল্প, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের নিজস্ব ফিলিং স্টেশন প্রকল্প, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের বিদ্যমান ছড়া ও খাল এর উভয় পার্শ্বে আরসিসি ওয়াল নির্মান প্রকল্প, সিলেট মহানগরীতে সুয়ারেজ সিস্টেম নির্মান প্রকল্প, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের নিজস্ব বিদ্যুত প্ল্যান্ট প্রকল্প, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের নিজস্ব সৌর বিদ্যুত প্রকল্প লালদিঘী হকার মার্কেট পুন:নির্মান প্রকল্প, হাসান মার্কেট নির্মাণ, আম্বরখানা পয়েন্টে সিটি কর্পোরেশনের ভুমিতে মার্কেট নির্মাণ, সিটি কর্পোরেশনের যুগোপযোগী মাস্টারপ্ল্যান প্রণয়ন প্রকল্প।
এইসব প্রকল্পের কিছু কিছু ইতোমধ্যে বাস্তবায়ন করা হয়েছে বাকী গুলো চলমানএবং প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।
আমরা বিশ্ববাংলার পক্ষ থেকে সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর সাথে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলেছি, জানতে চেয়েছি প্রকৃত তথ্য। তিনি অত্যন্ত আন্তরিকভাবে আমাদের প্রশ্নের জবাব দিয়েছেন। বিশ্ববাংলার পাঠকদের জন্য আলোচনার চুম্বক অংশটুকু এখানে তোলে ধরা হলো। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন মুহিত চৌধুরী

বিশ্ববাংলা : কেমন আছেন?
আরিফ : জ্বি আলহামদুলিল্লাহ ভালো।
বিশ্ববাংলা : মেয়র হিসাবে দায়িত্ব গ্রহণের প্রায় এক বছর হতে চলেছে। নগর উন্নয়নে আপনি উল্লেখযোগ্য কী কী কাজ করেছেন?
আরিফ : দায়িত্ব গ্রহণের এক বছর এখনও হয়নি, আগামী ১৮ সেপ্টেম্বর এক বছর পূর্ণ হবে। নগর উন্নয়নে এ পর্যন্ত যে কাজগুলো হয়েছে তা তো দৃশ্যমান। নির্বাচনের পূর্বে আমি নগরবাসীকে প্রতিশ্র“তি দিয়েছিলাম, নগরীতে জলাবদ্ধতা নিরসন করবো। এবার ৯৮ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হবার পরও নগরীতে জলাবদ্ধতা হয়নি। এ ব্যাপারে আমরা আগামীতে আরো উদ্যোগ নেবো ইনশাআল্লাহ।
বিশ্ববাংলা : নগরীর জলাবদ্ধতা স্থায়ীভাবে নিরসন করতে আপনার আর কী কী পরিকল্পনা রয়েছে?
আরিফ : নগরীর সবগুলো ছড়া-খালকে সংস্কার করে এবং দখল হওয়া ছড়ার জায়গা উদ্ধার করে আমরা দু’পাশে আরসিসি গার্ড ওয়াল নির্মাণের পরিকল্পনা করছ্ িএটি করতে পারলে ছড়া পুনরায় দখলের সম্ভাবনা থাকবে না। তবে ম্যান পাওয়ার দিয়ে বছরের পর বছর এটি করেও সমাধান হবে না। সেজন্য আমরা ভারী যন্ত্রাপাতি ক্রয় করছি। ইতোমধ্যে টেন্ডার আহ্বানও করা হয়েছে।
বিশ্ববাংলা : কবে নাগাত এ কাজ শুরু করবেন বলে আশা করছেন?
আরিফ : আগামী বর্ষা মৌসুমের আগেই এটি শুরু করতে পারবো বলে আশা করছি।
বিশ্ববাংলা : নগরীতে হঠাৎ করে মশার উপদ্রব কমে যাবার কারণ কী?
আরিফ : ড্রেন নালা নর্দমা নিয়মিত পরিস্কার এবং ছড়া সংস্কারের ফলে এটি হয়েছে।
বিশ্ববাংলা : খাল-ছড়া উদ্ধারে আপনি একসময় বলেছিলেন সেনাবাহিনীর সহযোগিতা নিবেন। কিন্তু নেননি কেন?
আরিফ : আমি দেখেছি নগরবাসীর মধ্যে এক ধরনের সচেতনতা বৃদ্ধি পেয়েছি। তারা এগিয়ে এসেছে নিজ উদ্যোগে এবং সরিয়ে ফেলেছে তাদের স্থাপনা। আমাকে পুলিশ প্রশাসনের পর্যন্ত সহযোগিতা নিতে হয়নি।
বিশ্ববাংলা : অভিযোগ রয়েছে ছড়া উদ্ধারে আপনি পুরোপুরি স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে পারেননি। প্রভাবশালীদের দখলে এখনও অনেক ছড়া রয়েছে। এব্যাপারে আপনার বক্তব্য কী?
আরিফ : আপনার এই অভিযোগ সত্য নয়। ইতোমধ্যে আমরা গাভিয়াল খাল, মালনিছড়া, ধোপাছড়া সংস্কারের কাজ করেছি। পর্যায়ক্রমে অন্য ছড়াগুলোও উদ্ধার এবং সংস্কার হবে। আপনি জেনে আনন্দিত হবেন, জাতীয় অধ্যাপক জামিল রেজাকে উপদেষ্টা করে নগর উন্নয়নের জন্য আমরা একটি কমিটি করেছি। ঈদের পরে সভা ডেকে পুরো সিটিকে একটা মাস্টার প্ল্যানের আওতায় এনে আমরা উন্নয়ন কাজ শুরু করবো।
বিশ্ববাংলা : নগর উন্নয়ন করতে গিয়ে কোন বিষয়গুলো আপনার কাছে সমস্যা বা অন্তরায় বলে মনে হচ্ছে?
আরিফ : কাজ করার ইচ্ছে থাকলে কোনো সমস্যাই সমস্যা নয়। তবে আমি দেখেছি মধ্য আয় এবং নিম্ন আয়ের মানুষেরা কখনও কোনো প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করতে চায় না। মূলত সমাজের কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তি তাদের ব্যক্তি স্বার্থের জন্য কোনো কোনো ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির চেষ্টা করেন।
বিশ্ববাংলা : আপনি বিরোধীদলীয় মেয়র হবার পরও মাননীয় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত আপনাকে সহযোগিতা করছেন এবং আপনার সাথে তাঁর চমৎকার সম্পর্ক রয়েছে। এর কারণ কী?
আরিফ : মাননীয় অর্থমন্ত্রী সিলেটের কৃতিসন্তান। অত্যন্ত বিজ্ঞ একজন মানুষ। তিনি সিলেটের উন্নয়নে খুবই আন্তরিক। এটা ঠিক তিনি বিভিন্ন ক্ষেত্রে আমাকে সহযোগিতা করছেন।
বিশ্ববাংলা : সিটি কর্পোরেশনের অনেক সম্পত্তি বেদখল রয়েছে। এগুলো উদ্ধারে আপনি কী পদক্ষেপ নিচ্ছেন? এবং এ পর্যন্ত কী পরিমাণ সম্পত্তি উদ্ধার করেছেন?
আরিফ : সিলেট সিটি কর্পোরেশন সম্পদশালী একটি প্রতিষ্ঠান হবার পরও লিজ এবং অন্যান্যভাবে অনেক সম্পদ আমাদের হাতছাড়া হয়ে গেছে। আমি দায়িত্ব নেবার পর যেখানেই সুযোগ পাচ্ছি, আইনের মাধ্যম তা উদ্ধারের চেষ্টা করছি। ইতোমধ্যে আমরা দর্শনদেউড়ী, আম্বরখানা এলাকা থেকে সিটি কর্পোরেশনের ভূমি উদ্ধার করেছি। পর্যায়ক্রমে বাকী জমি ও সম্পদ উদ্ধার করা হবে। সিলেট সিটি কর্পোরেশনের যে সকল সম্পত্তি এবং ভূমি বেদখল আছে তা উদ্ধার করা হলে এটি একটি স্বয়ংসম্পূর্ণ সিটি কর্পোরেশনে পরিণত হবে।
বিশ্ববাংলা : আপনি দায়িত্ব নেবার পর গত ৭/৮ বছরের জমা করা হোল্ডিং টেক্স এর নোটিশ পাঠানো হয়। এ নিয়ে নগরবাসীর মধ্যে এক ধরনের ক্ষোভ লক্ষ করা গেছে। হোল্ডিং টেক্স আদায়ের ব্যাপারে আপনার কী নতুন কোনো পরিকল্পনা আছে?
আরিফ : আমি জানি না এসেসমেন্ট হবার পরও কেন কোন উদ্দেশ্যে ৭/৮ বছর হোল্ডিং টেক্স জমা করে রাখা হয়েছিলো। নগরবাসী টেক্স দেবার ব্যাপারে খুবই আন্তরিক। আমি এখন থেকে প্রতি বছরের টেক্স প্রতি বছরই আদায় করার ব্যবস্থা নেবো যাতে নগরবাসীর কষ্ট না হয়। ইতোমধ্যে আমরা এটিকে সফটওয়ারের মধ্যে নিয়ে এসেছি।
বিশ্ববাংলা : দায়িত্ব নিয়েই নগরীর ফুটপাত থেকে হকার উচ্ছেদ করেছিলেন। বলেছিলেন ফুটপাতে টালইস লাগবে, রেলিং হবে, হাটাচলার সুন্দর ব্যবস্থা হবে, কিন্তু এখনও কিছু হয়নি এর কারণ কী?
আরিফ : কিছু হয়নি, একথা ঠিক না। আপনি যদি সরমা পয়েন্ট থেকে হাসান মার্কেটের সামনের দিকে আসেন দেখবেন ফুটপাত আমরা টালইস লাগিয়েছি, রিক্সা চলাচলের আলাদা লেইন করেছি, চৌহাট্টা থেকে জিন্দাবাজার পর্যন্ত আমরা ফুটপাতে টাইলস লাগিয়েছি। এখন আমরা এই কাজে কিছুটা বিরতি দিয়েছি। এজন্য যে, চৌহাট্টা থেকে বন্দর বাজার পর্যন্ত সকল বিদ্যুৎ এর লাইনকে আন্ডারগ্রাউন্ড করবো। এটি করার পর আমরা দেখবো কোথায় ডিভাইডার হবে কোথায় রেলিং হবে। দুইবার কাজ করেতো লাভ নেই। ঈদের পরই আশা করছি এ কাজ আমরা শুরু করতে পারবো। এটি বাস্তবায়ন হলে দেখবেন জিন্দাবাজারের চেহারা পাল্টে যাবে।
বিশ্ববাংলা : নগরী থেকে টমটম উচ্ছেদ করার ফলে রিকশা এবং অটোরিকশার ড্রাইভাররা সুযোগ নিচ্ছে। তারা যাত্রীদের কাছ থেকে ২/৩ গুন হারে বাড়তি ভাড়া নিচ্ছে। বিষয়টি তদারক এবং ভাড়া নির্ধারণে কোনো উদ্যোগ নিবেন কি?
আরিফ : অবশ্য। রিকশা ভাড়া নির্ধারণের জন্য ইতোমধ্যে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। আমরা নগরের বিভিন্ন পেশাজীবী এবং সুধিজনের সাথে আলাপ আলোচনা করে তাদের মতামতের ভিত্তিতে খুব শীঘ্রই এ ব্যাপারে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করবো।
বিশ্ববাংলা : মেয়র নির্বাচিত হবার পর অনেকেই আশা করেছিলেন সিলেটের স্থানীয় রাজনীতিতে আপনি ব্যাপকভাবে অংশগ্রহণ করবেন। বিএনপিতে নতুন গতি আসবে। স্থানীয় রাজনীেিত চোখে পড়ার মতো আপনার কোনো ভূমিকা লক্ষ কর যাচ্ছে না এর কারণ কী?
আরিফ : মেয়র হিসাবে আমি কখনও দলীয় দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে কাজ করি না। আমি সিলেট জেলা কিংবা মহানগরের কোনো দায়িত্বপ্রাপ্ত নই। কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য। আমার দলকে তৃণমূল পর্যায়ে সংগঠিত করা হচ্ছে। আমাকে যখনই দল যে দায়িত্ব দেবে আমি তা নিষ্টার সাথে পালন করবো। বিএনপিই আমার দল। যতদিন বেঁচে থাকবো ততদিন বিএনপির রাজনীতিই করবো। এ ব্যাপারে বিভ্রান্তির অবকাশ নেই।
বিশ্ববাংলা : বিশ্ববাংলা সম্পর্কে আপনার মূল্যায়ন কী?
আরিফ : বিশ্ববাংলা আমার প্রিয় একটি মাসিক ম্যাগাজিন। আমি এটি নিয়মিত পড়ি। বিশ্ববাংলা আমার কাছে এ জন্য ভালোলাগে বিশ্ববাংলায় প্রতিবেদনগুলোতে সমস্যা, সম্ভাবনা এবং সমস্যা সমাধানের একটি পরামর্শ থাকে। আমার স্পষ্ট মনে আছে আমরা যখন ক্ষমতায় ছিলাম তখন বিশ্ববাংলা আমার কাজকর্মের উপর ভিত্তি করে একটা প্রচ্ছদ প্রতিবেদন তৈরী করেছিলো। সেই প্রতিবেদনে অত্যন্ত গঠনমূলক কিছু সমালোচনা ছিলো। এই প্রতিবেদন পড়ে আমি আমার ত্র“টিগুলো সংশোধন করতে পেরেছিলাম।
বিশ্ববাংলা : ধন্যবাদ আপনাকে।
আরিফ : আপনাকে ও বিশ্ববাংলা পাঠকদের অনেক অনেক ধন্যবাদ ও ঈদ মোবারক।
-----
সৌজন্যে: মাসিক বিশ্ববাংলা       

 
 
 
 

ইব্রাহিম খলিল: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, লন্ডন প্রবাসীরা ঢাকা হয়ে নয়, আগে সিলেট যাবেন পরে ঢাকা। সিলেট এম এ জি ওসমানী বিমান বন্দরকে একটি পূর্নাঙ্গ আšর্তজাতিক বিমান বন্দরে রুপ দিতে সকল ধরনের পদক্ষেপ গ্রহন করার পাশাপাশি দ্রুত রিফ্যুয়েলিং ব্যবস্থা চালু করার প্রতিশ্রুতি দেন প্রধানমন্ত্রী। লন্ডনে যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগ আয়োজিত ইফতার ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৃটিশ ভিসা কার্যক্রম দিল্লিতে স্থানান্তর বিষয়ে মঙ্গলবার বৃটেনের প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরুনের সাথে তার আলোচনা হয়েছে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, এর ফলে ভিসা কার্যক্রমে কোন সমস্যা হবেনা। তবে বর্তমানে অনলাইন পদ্ধতি সহজ হওয়ার কারনে ইন্টারনেটের মাধ্যমে ভিসা আবেদন করার আহবান জানান তিনি।

৫ জানুয়ারীর নির্বাচনে ৪০ ভাগের বেশী মানুষ ভোট দিয়ে বর্তমান সরকারকে নির্বাচিত করেছে দাবী করে শেখ হাসিনা বলেন, দেশের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন হয় আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসলে। দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতির জন্য আওয়ামীলীগের কোন বিকলপ নেই।

সেন্ট্রাল লন্ডনের অভিজাত হোটেল হিল্টনে আয়োজিত ইফতার মাহফিলের সভাপতিত্ব করেন যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের সভাপতি সুলতান মাহমুদ শরীফ। সাধারন স¤পাদক সৈয়দ সাজিদুর রহমান ফারুকের পরিচালনায় এতে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বৃটিশ হোম অফিস সিলেক্ট কমিটির চেয়ার কিথ ভাজ এমপি, লেবার সরকারের সাবেক মন্ত্রী জিম ফিজপেট্রিক এমপি, ভেলারী ভাজ এমপি। এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশের পররাস্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী,নারী ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি, বৃটিশ এমপি ফ্রাঙ্ক ডবসন, প্রখ্যাত সাংবাদিক আব্দুল গফফার চৌধুরীসহ যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের সিনিয়র নেতৃবৃন্দ               

 
 
 

সিলেট, ২৩ জুলাই:
বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্বা সংসদ কেন্দ্রীয় সংসদের সহ সাংগঠনিক সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্বা এডভোকেট রফিকুল হক বলেছেন, শহীদ কর্ণেল আবু তাহের বীরউত্তম ফাঁসির রশি গলায় ঝুলিয়েও আত্ম সমর্পন করেননি। তিনি একটি আত্মনির্ভশীল বাঙালী জাতির শোষনহীন সমাজ বিনির্মাণই লক্ষ্য ছিলো কর্ণেল আবু তাহেরের। তিনি বাঙালী জাতির স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার জন্য সশস্ত্র লড়াই যুদ্ধের নেতৃত্ব দিয়ে সম্মুখ যুদ্ধে অংশ নিয়ে নিজের একটি  পা উপহার দিয়েছেন, আর শোষনহীন সমাজ প্রতিষ্ঠার জন্য নিজের জীবন উপহার দিয়েছেন। তার মৃত্যুর ৩৮ তম দিবসে দেশের বাস্তবতা অত্যন্ত ভয়ংকর। ষড়যন্ত্র, চক্রান্তের অক্টোপাসে আবদ্ধ সমগ্র দেশ ও জাতি। এ অবস্থা থেকে দেশকে মুক্ত করতেই হবে। যুদ্ধাপরাধীদের রায় দ্রুত  কার্যকর ও  দেশ বিরোধী সকল চক্রান্ত মোকাবেলায় মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসি সকল রাজনৈতিক দল কে ঐক্যবদ্ব থাকতে হবে । শহীদ কর্ণেল আবু তাহের বীর উত্তম এর ৩৮ তম মৃত্যু দিবসে সিলেট মহানগর জাসদ আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য প্রদান কালে  তিনি একথা বলেন।
বুধবার বিকাল ৫ টায় সিলেট  মহানগর জাসদ সভাপতি এডভোকেট জাকির আহমদের  সভাপতিত্বে সাধারণ সম্পাদক নাজাত কবিরের পরিচালনায়  প্রধান অতিথি দেশের বর্তমান প্রেক্ষাপটে গনতন্ত্রকে একাত্তরের সেই ঘাতকদের ষড়যন্ত্রের ব্যপারে সকল কে সতর্ক থাকতে হবে।যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের রায় দ্রত কার্যকর করে জাতিকে দায় মুক্ত করতে হবে। কর্নেল তাহেরের স্বপ্ন শোষন মুক্ত সমাজ গঠনে জাসদের নেতা কর্মীদের ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। মহানগর জাসদের সাধারণ সম্পাদক নাজাত কবীরের পরিচালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সিলেট জেলা জাসদের যুগ্ম সম্পাদক আলাউদ্দিন আহমদ সভায় যুদ্ধাপরাধীদের বিচার দ্রুত নিষ্পত্তি ও জাতীয় অপরাধ শীর্ষক আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন মহানগর জাসদের সিনিয়র সহ সভাপতি ফেরদৌস আরবী, মিশফাক আহমেদ চৌধুরী মিশু, আব্দুল মুত্তাকিন , মুহি উদ্দিন আহমদ, গিয়াস আহমদ, অধ্যক্ষ গোলাম কিবরিয়া, কামাল আহমদ চৌধুরী আলমগীর,হিরনময় চক্রবর্তী নন্টু,  কামরুল ইসলাম দিপু, আমিরুল ইসলাম চৌধুরী এহিয়া, সোহরাব আলী, আলী আকবর, জহির রায়হান, আব্দুল বাছির বাদল, প্রদীপ চৌধুরী, পান্নালাল চৌধুরী, মোস্তাফিজুর রহমান খান টিপু, হুমায়ুন কবীর মাহফুজ, মোয়াজ্জেম হোসেন নান্টু, ফয়জুল্লাহ ফারুকী আদনান,  বাবুল আহমদ প্রমূখ। সভায় বক্তারা গাজায় ইসরাইল বাহীনির হত্যাকান্ডের নিন্দা জ্ঞাপন করেন।সভাপতির বক্তব্যে এডভোকেট জাকির আহমদ বলেন কর্নেল তাহেরের সপ্ন বাস্তবায়নে শোষন মুক্ত সমাজ ব্যবস্থা কায়েমে সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে।  বিজ্ঞপ্তি
               

 
 
 

এ.জে লাভলু, বড়লেখা প্রতিনিধি:
মৌলভীবাজারের বড়লেখা উপজেলার সুজানগর পাথারিয়া কলেজ রাস্তার উন্নয়ন (পাকা করন) কাজের উদ্বোধন করেছেন জাতীয় সংসদের হুইপ শাহাব উদ্দিন এমপি বুধবার নির্মাণ কাজের উদ্বোধন উপলক্ষে আয়োজিত সভায় তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন। এক কিলোমিটার এ রাস্তা নির্মাণে প্রায় ৪১ লাখ টাকা ব্যয় হবে।
কলেজের ভুমি দাতা শফিক উদ্দিনের সভাপতিত্বে ও উপাধ্যক্ষ একেএম হেলাল উদ্দিনের পরিচালনায় কলেজ প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন ইউএনও সৈয়দ মোহাম্মদ আমিনুর রহমান, ওসি আবুল হাশেম, উপজেলা প্রকৌশলী বিদ্যুৎ ভুষন পাল, ইউপি চেয়ারম্যান নছিব আলী, ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি ইমরুল ইসলাম লাল, প্রধান শিক্ষক আশরাফ হায়দার, আব্দুর রহিম প্রমূখ।
               

 
 
 

সিলেট, ২৩ জুলাই:
সিলেটের জেলা প্রশাসক মোঃ শহিদুল ইসলাম বলেছেন হিজড়ারা এই সমাজেরই অংশ। তাদের প্রতি সমাজের সকলকে সদয় ও সহানুভূতিশীল হতে হবে। তাদের জীবনমান উন্নয়নে জনসচেতনতা বৃদ্ধি ও প্রশিক্ষণ দানের মাধ্যমে স্বাবলম্বি করে গড়ে তুলতে হবে। হিজড়াদের প্রথমে দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন ঘটাতে হবে। সমাজে একজন সুস্থ নাগরিক হিসেবে রাষ্ট্রীয় কর্মকা-ে তাদের অংশ গ্রহণ নিশ্চিত করতে হবে। মনে রাখতে হবে হিজড়ারা সমাজের একটি অংশ। সর্বক্ষেত্রে তাদের অগ্রাধিকার প্রদান করতে হবে। সেই সাথে হিজড়াদেরকেও আত্মপ্রত্যয়ী ভালো মানুষ হিসাবে সমাজে প্রতিষ্ঠিত করে তুলতে সকলকে সহযোগিতার হাত প্রসারিত করতে হবে। ইতোমধ্যে বর্তমান সরকার হিজড়াদের জীবনমান উন্নয়নে বিভিন্ন প্রদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। তাদের জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদান এবং বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ প্রদানের জন্য উদ্যোগ হাতে নিয়েছে। সমাজসেবা অধিদপ্তর ভাতা, প্রশিক্ষণ সহ বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে। বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন তাদের সহযোগিতায় এগিয়ে এসেছে। তিনি তাদের জীবনমান উন্নয়নে প্রশাসনের পক্ষে সবরকম সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন।
তিনি বুধবার সিলেট জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের উদ্যোগে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে “হিজড়া জনগোষ্ঠির জীবনমান উন্নয়ন” শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। জেলা সমাজসেবা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ আবুল কালাম এর সভাপতিত্বে ও সমাজসেবা কর্মকর্তা আসাদুজ্জামানের পরিচালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন সিলেটের পুলিশ সুপার নূরে আলম মিনা পিপিএম, মেট্রোপলিটন পুলিশ এর অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) জেদান আল মুসা, সিলেট জেলা শিক্ষা অফিসার জাহাঙ্গীর আলম, গোলাপগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাফিজ নাজমুল ইসলাম। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সমাজসেবা কার্যালয়ের রেজিস্ট্রেশন কর্মকর্তা নিবাস রঞ্জন দাস, শহর সমাজ সেবা কর্মকর্তা আব্দুর রফিক, দৈনিক সিলেটের ডাক এর সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার এম. আহমদ আলী, দি ডেইলী নিউ নেশনের সিলেট প্রতিনিধি শফিক আহমদ শফি, জাতীয় যুব পদকপ্রাপ্ত রোটারিয়ান শাকির আহমদ শিকদার, জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের প্রশাসনিক কর্মকর্তা আবু সাঈদ, জৈন্তাপুর উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা এ.কে আজাদ ভুইয়া, জকিগঞ্জ উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা দেবব্রত দাশ, বাঁধন হিজড়া সংঘের ডিআইসি ম্যানেজার মতিউর রহমান, বন্ধু সোসিয়েল ওয়েলফেয়ার সোসাইটির ডিআইসি ম্যানেজার চাঁদনী আক্তার, ফটো সাংবাদিক এম.এ খালিক, শহিদুল ইসলাম প্রমুখ।
               

 
 
 

ফিলিস্তিনে ইসরাইলি সহিংসতায় মানবিক বিপর্যয়ে বিশ্ব নেতৃবৃন্দের উদাসীনতায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন। জাতিসংঘস্থ বাংলাদেশ মিশনের সচিব (প্রেস) মামুন-অর-রশিদ স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।
২২ জুলাই মঙ্গলবার নিউইয়র্কে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে ‘সিচ্যুয়েশন ইন দ্য মিডল ইস্ট ইনক্লুডিং দ্য কোয়েসশন অব প্যালেস্টাইন’ বিষয়ে উন্মুক্ত বিতর্ক অনুষ্ঠানে তিনি এ ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এতে বাংলাদেশসহ জাতিসংঘের ৬০টির অধিক সদস্য রাষ্ট্র অংশ নেয়।
তিনি ফিলিস্তিনিদের প্রতি বাংলাদেশ সরকার ও জনগণের সহমর্মিতা, ভ্রাতৃত্ববোধ ও আকুণ্ঠ সমর্থন রয়েছে জানিয়ে বলেন, জাতিসংঘের সদস্য রাষ্ট্র ইসরাঈল আন্তর্জাতিক সকল বিধি নিষেধ অমান্য করে ফিলিস্তিনিদের উপর অমানবিক, আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইনের পরিপন্থি এ হত্যাযজ্ঞ চালাচ্ছে। ড. মোমেন ফিলিস্তিনীদের উপর ইসরাঈলি হত্যাযজ্ঞ বন্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ ও বিশ্ব নেতৃত্বের প্রতি আহ্বান জানান।
তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, এ হত্যাযজ্ঞ বন্ধে এবং ইসরাঈল-প্যালেস্টাইন সমস্যার দীর্ঘস্থায়ী রাজনৈতিক সমাধানের জন্য জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ একজন নিরপেক্ষ মধ্যস্থতাকারীর ভূমিকা রাখবে। যাতে তারা দু’টি স্বাধীন দেশ হিসেবে শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান করতে পারে।

 
 
 

সিলেট, ২৩ জুলাই:
সিলেটের বিমানবন্দর থানা পুলিশের পিকআপ ভ্যান চাপায় সিএনজি অটোরিকশার তিনযাত্রী আহত হয়েছেন। আহতদের সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বুধবার সকাল ১০টার দিকে সিলেট ক্যাডেট কলেজের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বিমানবন্দর থানার পিকআপ ভ্যানটি সিলেট ক্যাডেট কলেজের সামনে একটি সিএনজি অটোরিকশাকে ধাক্কা দেয়। এতে অটোরিকশার তিন যাত্রী আহত হন। পরে তাদেরকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়।
বিমানবন্দর থানার ওসি শাহ জামান বলেন- ক্যাডেট কলেজের সামনে একটি ট্রাককে সাইড দেয়ার সময় অটোরিকশার সাথে ধাক্কা লাগে। এতে অটোরিকশার যাত্রীরা আহত হন।
ওসি জানান- খবর পেয়ে তিনি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গিয়েছেন। সেখানে আহত একজনকে পেয়েছেন। তার চিকিৎসার খোঁজখবর তিনি নিয়েছেন।   

 
 
 

হবিগঞ্জ ২৩ জুলাই  :
হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলায় রেলস্টেশনের কাছ থেকে তিন যুবকের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। বুধবার সকাল ৯টার দিকে মাধবপুর উপজেলার নওয়াপাড়া রেলস্টেশনের কাছ থেকে লাশ তিনটি উদ্ধার করে রেলওয়ে পুলিশ।
নিহতরা হলেন-মাধবপুর উপজেলার বেঙ্গাড়োবা গ্রামের শিপন (১৯) এবং একই গ্রামের বুটলা মিয়া (৩৫) তা‍ৎক্ষণিকভাবে অপরজনের পরিচয় জানা যায়নি।
জানা যায়, নোয়াপাড়া রেলস্টেশনের ৫০০ গজ উত্তরে লাশ ৩টি পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয় লোকজন থানা ও রেলওয়ে পুলিশকে খবর দেয়। পরে লাশ ৩টি উদ্ধার করা হয়।
মঙ্গলবার রাতের যেকোনো সময় ট্রেনে কাটা পড়ে তাদের মৃত্যু হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
শায়েস্তাগঞ্জ রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক (এসআই) ওসমান গণি  জানান, ধারণা করা হচ্ছে তাদের দূরে কোথাও হত্যা করে লাশগুলো রেল লাইনের উপর ফেলে যায় দুর্বৃত্তরা।            

 
 
 

সিলেট, ২২ জুলাই :
চার্জশীট দিতে বিলম্ব করায় উপ-পরিদর্শক (এসআই) মাহবুবুর রহমান ও চাঁদা আদায়ের অভিযোগে কনস্টেবল রাব্বানিকে সাময়িক বরখাস্তের এ আদেশ দেন মহানগর পুলিশ কমিশনার মিজানুর রহমান।
উপ-পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) মুশফিকুর রহমানের সভাপতিত্বে মঙ্গলবার দুপুরে দক্ষিণ সুরমা থানা কম্পাউন্ডে ওপেন হাউস ডে অনুষ্ঠিত হয়।
এতে প্রধান অতিথি বক্তব্যে মহানগর পুলিশ কমিশনার মিজানুর রহমান সিলেটের ফল ব্যবসায়ীদের সতর্ক করে বলেন, প্রতিটি দোকানে ফরমালিন পরীক্ষার জন্য মেশিন রাখতে হবে। এছাড়া মালামাল নিয়ে আসা ট্রাক যাতে যানজট সৃষ্টি না করে, কেন্দ্রিয় বাস টার্মিনালের মতো নিজস্ব স্বেচ্ছাসেবী দ্বারা নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। এসময় অপরাধ নিয়ন্ত্রণে পুলিশকে আরো কঠোর হওয়ার নির্দেশনা দিয়ে তিনি বলেন, ঈদ বাজারে যাতে কোন ধরনের ছিনতাই অপকর্ম না হয় সেদিকে সতর্ক দৃষ্টি রাখতে হবে থানা পুলিশকে।

এর আগে উপস্থিত লোকজনের মধ্যে বক্তব্যে দক্ষিণ সুরমার তেতলী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ময়নুল ইসলাম অভিযোগ করেন, একটি মামলার চার্জশীট তৈরিতে কয়েকমাস ধরে অপেক্ষা করতে হয়েছে তাকে। টাকা না দেওয়ায় এসআই মাহবুব চার্জশীট দেননি। এ অভিযোগের প্রেক্ষিতেকমিশনার মিজানুর রহমান তাক্ষণিক এসআই মাহবুবের অবস্থান জানতে চান। মহানগরীর জালালাবাদ থানায় কর্মরত এসআই মাহবুবকে সাময়িক বরখাস্তের জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন। এছাড়া দক্ষিণ সুরমার চন্ডিপুল এলাকায় গাড়ি থেকে চাঁদাবাজির তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতে কনস্টেবল রাব্বানিকে বরখাস্তের এ আদেশ দেন তিনি।

দক্ষিণ সুরমা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ মুরসালিনের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) জেদান আল মুসা, সহকারী কমিশনার (এসি) মো. নাসির। এছাড়া এলাকার বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার লোকজন ওপেন হাউস ডে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।               

 
 
 

সিলেট, ২২ জুলাই:
সিলেটের সাথে রেল যোগাযোগ সচল হয়েছে ৬ ঘন্টা পর । মোগলাবাজারে তেলবাহী ওয়াগন লাইনচ্যূত হয়ে সিলেটের সাথে সারাদেশর রেল যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা তেলবাহী ট্রেনের একটি ওয়াগন দক্ষিণ সুরমার মোগলাবাজারে লাইনচ্যূত হলে রেল যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। ৬ ঘন্টা পর রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক হয়েছে বলে জানিয়েছেন রেলওয়ে সংশ্লিষ্টরা।                

 
 
 

গাজা সিটি: ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজায় চরম বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে ইহুদিবাদী ইসরাইল। পৃথিবীর সর্বাধুনিক সমরাস্ত্র সজ্জিত ও উচ্চ প্রশিক্ষিত ইসরাইলি বাহিনী গাজা নিয়ন্ত্রণকারী ইসলামপন্থী হামাসের হাতে চরম মার খাচ্ছে।
ইহুদিবাদী ইসরাইলের সামরিক বাহিনী দাবি করেছে, গাজায় হামলা শুরুর পর থেকে এ পর্যন্ত তাদের ২৭ সেনা নিহত হয়েছে। সোমবার ইসরাইলের সেদরোত শহরে হামাস যোদ্ধাদের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে আরো চার ইসরাইলি সেনা নিহত হয়েছে বলে স্বীকার করেছে। সর্বশেষ ২০০৯ সালে গাজায় ইসরাইলি স্থল অভিযানে যত ইসরাইলি সৈন্য মারা গিয়েছিল এবার ইতোমধ্যেই মারা গেছে তার দ্বিগুন সেনা।
এদিকে হামাস বলেছে, সোমবার তাদের হাতে নতুন করে ইসরাইলের ১০ সেনা ‘খতম’ হয়েছে। গাজার পূর্বাঞ্চলে এক আকস্মিক হামলায় এসব সেনা নিহত হয়। সে হিসাবে ইসরাইলের অন্তত ৪২ জন সেনা নিহত হয়েছে। আহত সেনার সংখ্যা ১০০ ছাড়িয়ে গেছে।


ইসরাইল এবার হামাস যোদ্ধাদের হত্যায় খুব বড় ধরণের সাফল্যও দাবি করেনি। শুধু সোমবার ক্ষীণকণ্ঠে দাবি করে যে তারা ১০ জন ফিলিস্তিনি যোদ্ধাকে হত্যা করেছে।

এদিকে ইসরাইলি সেনাবাহিনী স্বীকার করেছে যে গাজায় ইসরাইলের সর্বাত্মক স্থল, আকাশ ও নৌ হামলার মধ্যেও সোমবার ১১৬টি রকেট ছুড়েছে হামাস। তার ১৭টি ভূপাতিত করা হয়েছে এবং বাকিগুলো বৃহত্তর তেল আবিবে আঘাত হেনেছে।

তবে হামাসের হাতে তাদের কত সেনা আহত হয়েছে তা পরিষ্কার করে বলেনি।

ইরানের প্রেস টিভির ফুটেজে দেখা গেছে, হেলিকপ্টার থেকে ইহুদিবাদী সেনারা সামরিক বাহিনীর হতাহত সদস্যদেরকে নামিয়ে নিচ্ছে। এছাড়া, ইসরাইলি পতাকায় মোড়া বেশ কয়েকটি লাশর কফিনও দেখা গেছে।

গাজায় যুদ্ধবিরতির বিষয়ে পশ্চিমা ও আন্তর্জাতিক তোড়জোড় দেখে ধারণা করা হচ্ছে যে গাজায় ইসরাইলি সেনারা বড় ধরনের বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে।

সূত্র: আল জাজিরা/প্রেস টিভি/এএফপি               

 
 
 
 
 
কবিতা
শিল্প-সাহিত্
মিডিয়া
ইসলাম
Image Missing
 
 
বিনোদন
বিনোদন
বিচিত্রা
বিচিত্রা
মুক্তমঞ্চ
Image Missing
 
 
খেলাধুলা
খেলাধুলা
স্বাস্থ্য
স্বাস্থ্য
তথ্য-প্রযুক্তি
তথ্য-প্রযুক্তি
 
 
সংবাদদাতা
জীবন সদস্য
সম্পাদক
 
দেশ বিদেশ
 
 
 

নিউজডেস্ক: বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের আমন্ত্রণে গত রোববার মসজিদে নববীতে ইফতার করেছেন জামায়াতে ইসলামীর নায়েবে আমির মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর ছেলে মাসুদ সাঈদী। সঙ্গে ছিলেন বিজেপি চেয়ারম্যান আন্দালিভ রহমান পার্থ। তাদের এই ইফতার মাহফিলকে সরকারবিরোধী বৈঠক বলে বিভিন্ন মহলে প্রচারিত হয়েছে।

মঙ্গলবার মাসুদ সাঈদী তার ফেসবুকে এর ব্যাখ্যা দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, “গতকাল (রোববার) মসজিদে নববীতে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান জনাব তারেক রহমান, বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জনাব আন্দালিব রহমান পার্থ এবং আমি একসাথে ইফতার করেছিলাম। জনাব তারেক রহমানের আমন্ত্রণে আমি ওই ইফতার মাহফিলে অংশগ্রহণ করেছিলাম। একসাথে করা ইফতারের এই ছবি ফেসবুকে প্রকাশিত হওয়ার পর নানা মানুষের নানা কথা শুনছি।

সাংবাদিক বন্ধুগণ আমাকে ফোন করে জানতে চাইছেন, আমরা তিনজন সরকারবিরোধী আন্দোলন কিংবা সরকার পতনের বিষয়ে কী কী আলোচনা করেছি!!

মসজিদে নববীর সাথেইতো আমাদের থাকার হোটেল, সরকারবিরোধী আন্দোলনের কথা বলতে মসজিদে নববীতে গিয়ে সকলের উপস্থিতিতে ক্যামেরার সামনে করতে হবে কেন??!!

আমি হাসব না কাঁদব বুঝতে পারছি না । আমি বুঝতেই পারছি না একটি সহজ সরল ইফতার মাহফিল কী করে সরকারবিরোধী আন্দোলনের একটি মিটিংয়ে রূপ নেয়!!!!!!’”

গত ১৬ জুলাই রাতে পবিত্র ওমরা পালনের উদ্দেশে সৌদি আরব যান মাসুদ সাঈদী। ওইদিন মাসুদ সাঈদী এ প্রতিবেদকের কাছে অভিযোগ করে বলেছিলেন, ইমিগ্রেশন তাকে বিমানবন্দরে বসিয়ে রেখেছে, উপরের কর্মকর্তারা তাকে জানিয়েছে উপরের নির্দেশ না আসা পর্যন্ত তাকে বসে থাকতে হবে। এক ঘণ্টা বসিয়ে রেখে তাকে ক্লিয়ারেন্স দেয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।

২০ জুলাই মদিনা মনোয়ারার হোটেল রয়েলে ব্যবসায়ীদের দেয়া এক সংবর্ধনা এবং ইফতার মাহফিলে যোগ দেন মাসুদ সাঈদী। তার সঙ্গে রয়েছে তার স্ত্রী ও পুত্র। ওমরা পালনে যাওয়ার আগে তার বাবা মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর সঙ্গে দেখা করেছেন। তখন রাসুলের রওজায় তার নাম নিয়ে সালাম পৌঁছে দিতে বলেছেন। একই সঙ্গে দেশবাসীকে ঈদের অগ্রিম শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। কারণ ঈদের আগে পরিবারের আর কোনো সদস্যর সঙ্গে দেখা হবে না।

ওমরায় যাওয়ার আগে মাসুদ সাঈদী আরো বলেন, “রমজানে নামাজ-রোজা, তেলাওয়াত ও ইসলামি বই পড়েই কারাগারে সময় কাটছে দেলোওয়ার হোসেন সাঈদীর। সেহেরির সময় ওঠে তিনি তাহাজ্জুতের নামাজ আদায় করেন, পরে সেহেরি খেয়ে ফজরের নামাজ আদায় করে ঘুমিয়ে পড়েন। সকালে ঘুম থেকে ওঠে কুরআন তেলাওয়াত করেন।”

তিনি জানান, কারাগারে সেহেরিতে সাঈদীকে গরম খাবার দেয়া হয়। মাছ, গোশত, সবজি, ডাল, মোটা চালের ভাত সরবরাহ করা হয়। ইফতারিতে তার জন্য বরাদ্দ ২৮ টাকা। ছোলা, খেজুর,পেয়াজু দিয়ে ইফতার সারেন।

ফাঁসির আসামী হওয়া সত্ত্বেও মাওলানা সাঈদী মানসিকভাবে শক্ত আছেন বলেও জানান ছেলে মাসুদ সাঈদী।- সূত্র: নতুন বার্তা               

 
 
 
 
 
 

ঢাকা : বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, শুধু শহরকেন্দ্রিক আন্দোলন নয়, গ্রাম থেকে গ্রামান্তরে সরকার বিরোধী আন্দোলন ছড়িয়ে দিতে হবে। বিএনপি’র আন্দোলন ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য নয়। সাধারণ মানুষের অধিকার রক্ষা করার জন্য এই আন্দোলন।আজ বুধবার জাতীয় প্রেসক্লাবে ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির (ন্যাপ ভাসানী) প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় ফখরুল এ কথা বলেন।
তিনি বলেন, এবারের আন্দোলনের উত্তাল তরঙ্গে সরকার ভেসে যাবে। তাই সময় থাকতে আলোচনায় বসুন।মির্জা ফখরুল অভিযোগ করেন, সরকার গণমাধ্যমের ওপর নীরব সেন্সরশিপ চাপিয়ে কণ্ঠরোধ করার চেষ্টা করছে।
               

 
 
 
 
 
 

ঢাকা, ২৩ জুলাই :
মার্কিন রাষ্ট্রদূত ড্যান ডব্লিউ মজিনা বলেছেন, রাষ্ট্র কার্যকর ন্যায় বিচার প্রদানে ব্যর্থ হলে জনগণ বিচার ব্যবস্থার প্রতি আস্থা হারাবে এবং আইন নিজের হাতে তুলে নিবে। আর এতে বিচার ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়বে।
বুধবার সকালে রাজধানীর রাজারবাগে ডিটেকটিভ ট্রেনিং স্কুলে ফরেনসিক হত্যা তদন্ত বিষয়ক সেমিনারে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
মজিনা বলেন, বাংলাদেশসহ সমগ্র দক্ষিণ এশিয়াতে ঐতিহ্যগতভাবেই বিচার নির্ভর করে অপরাধীর স্বীকারোক্তির উপর। এই ব্যবস্থায় অপরাধকে উৎসাহ দেওয়া হয়। যেহেতু এতে অভিযুক্ত অপরাধীদের উপর চাপ প্রয়োগে স্বীকারোক্তি আদায়ের মাধ্যমে আদালতে মামলাটি নিষ্পত্তি করা হয়। তাই বিচারে প্রতিনিধিদের লাভবান হওয়ার সুযোগ থাকে। যা বিচার ব্যবস্থার প্রতি জনগণের আস্থা হ্রাস করে।
মজিনা আরো বলেন, আমেরিকার কয়েকজন ফরেনসিক বিশেষজ্ঞ শীর্ষ আলামত নিয়ে তাদের অভিজ্ঞতা ভাগাভাগি করতে বাংলাদেশে এসেছেন। এদেশের ফরেনসিক বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে কয়েক দশকের অভিজ্ঞতা বিনিময় করবে তারা। আমি মনে করি, এই অভিজ্ঞতা বিনিময়ের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের বিচার ব্যবস্থা গতিশীল হবে। বিচার ব্যবস্থার প্রতি মানুষের আস্থা বাড়বে।
সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের অতিরিক্ত পুলিশ মহাপরিদর্শক মো. মোখলেসুর রহমান। এছাড়া আরো উপস্থিত ছিলেন- ডিটেকটিভ ট্রেনিং স্কুলের পরিচালক মো. শাহাদত হোসেন ও আমেরিকার ফরেনসিক বিশেষজ্ঞ মার্ক মোজেল। এ সময় সিআইডি’র বিভিন্ন বিভাগের ইন্সপেক্টর ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন।
               

 
 
 
 
 
 

তৈয়বুর রহমান টনি নিউ ইয়র্কঃ
নিহত যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ এর অন্যতম সহ-সভাপতি ও যুক্তরাষ্ট্র যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা মরহুম নাজমুল ইসলামের রুহের মাগফেরাত কামনা করে দোয়া মাহফীল ও ইফতার অনুষ্ঠিত হয়েছে।
মঙ্গলবার ২৩ জুলাই সন্ধ্যায় জ্যাকসন হাইটসে অবস্হিত “টক অব দ্যা টাউন” রেষ্ট্রুরেন্টে দোয়া মাহফীল ও ইফতার অনুষ্ঠানের আয়োজন করে যুক্তরাষ্ট্র স্বেচ্ছাসেবক লীগ। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথী ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ এর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি
মোঃ লুতফুল করিম এবং বিশেষ বক্তা ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ এর সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদ, মঞ্চে বিশেষ অতিথীরা ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ এর যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদ, উপ-প্রচার সম্পাদক তৈয়বুর রহমান টনি, বি এম জাকির হোসেন(হীরু ভূইয়া)সভাপতি গোপালগজ্ঞ জেলা সমিতি, আজিজুল হক খোকন সভাপতি যুক্তরাষ্ট্র শ্রমীকলীগ, মোঃ কাইয়ুম সভাপতি মাদারীপুর জেলা সমিতি, জাহাঙ্গীর ইএচ মিয়া সাধারন সম্পাদক ছাএলীগ, এম,ডি, হাসান জিলানী, ফরিদা আরভী সভাপতি নিউ ইংল্যান্ড স্বেচ্ছাসেবক লীগ।
অনুষ্ঠানের প্রারম্ভে মরহুম নাজমুল ইসলামের রুহের মাগফেরাত কামনা করে এবং শোকসন্তপ্ত পরিবার ও স্বজনদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়ে পবিত্র কোরআন থেকে তেলওয়াত পাঠ, বিশেষ মোনাজাত ও দোয়া পরিচালনা করেন মাওলনা কাজী কাইয়ুম।
যুক্তরাষ্ট্র স্বেচ্ছাসেবক লীগ এর দোয়া মাহফীল ও ইফতার অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন যুক্তরাষ্ট্র স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মোঃ সাখাওয়াত বিশ্বাস ও পরিচালনা করেন সাধারন সম্পাদক আব্দুল হামিদ। অনুষ্ঠানে আরোও বক্তব্য রাখেন এবং উপস্হিত ছিলেন মোঃ আবুল কাশেম, মোঃ কবির আলী, মাহাবুর রহমান চাঁদ, আহসান হাবীব, জসীম উদ্দিন, আনিসু জ্জামান সবুজ, মোঃ সোহেল আহমেদ, মোঃ আবুল কালাম, মোঃ তমাল হোসেন, বিদুৎ হোসেন, মোঃ আলা-আমীন হোসেন, কামরুল ইসলাম মুকুল, অতুল দাদা, মোঃ পারভেজ, হাসান পারভেজ, বেলায়েত হোসেন মিলু ও প্রমূখ।
বক্তারা মরহুমের আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং শোকার্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান। বক্তারা বলেন, মরহুম নাজমুল ইসলামের মৃত্যুতে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ একজন একজন বলিষ্ঠ নেতাকে হারালো। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন ও আদর্শ মরহুম নাজমুল ইসলামকে প্রভাবিত করেছিল দারুনভাবে। তাঁর অভাব কোনোদিন পূরণ হবার নয়। নিউ ইয়র্ক প্রবাসী আওয়ামী লীগ তাঁকে গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করবে।
এই দোয়া মাহফীলে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গ সংগঠনের বহুনেতাকর্মীসহ সমাজের সর্বস্তরের বহু মানুষ উপস্হিত ছিলেন। অনুষ্ঠান শেষে উপস্হিত সকলের মাঝে ইফতার বিতরন করা হয়।উল্যেখ সন্ত্রাসী হামলায় নিহত যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের অন্যতম সহ-সভাপতি মরহুম নাজমুল ইসলামের হত্যার বিচার দাবী করে এক প্রতিবাদ, শোকসভা ও র়্যালী অনুষ্ঠিত হবে আগামী শক্রবার বাদ জুম্মা ওজনপার্ক। স্হান নাজমুল ইসলাকে যেখানে খুন করা হয় সেই স্হানে ২৫ জুলাই শুক্রবার ২০১৪, সময় ২ টা থেকে ৪ টা(বাদ জুম্মা), স্হান আটলান্টিক এভিনিউ, ৭৬ ষ্ট্রিট, ওজনপার্ক।                          

 
 
 
 
 
 

ঢাকা, ২৩ জুলাই :
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও ঢাকা মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক মির্জা আব্বাস বলেছেন, বিএনপিতে কোন কোন্দল বা গ্রুপিং নেই। এ বিষয়ে অনেকে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। আমারা খালেদা জিয়ার একক নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ হয়ে দলের জন্য কাজ করে যাচ্ছি।
বুধবার দুপুরে ঢাকা মহানগর নবগঠিত আহ্বায়ক কমিটির সঙ্গে জরুরি বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ কথা বলেন।
আব্বাস বলেন, ঈদের পরে খালেদা জিয়ার ঘোষিত সরকার বিরোধী আন্দোলন আমাদের ঈমানি দায়িত্ব। তাই আমরা ঈদের পর মহানগরের প্রতিটি থানা-ওয়ার্ড ঢেলে সাজিয়ে রাজপথে থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।
মহানগর বিএনপির কমিটি নিয়ে আওয়ামী লীগের মন্তব্য প্রসঙ্গে মির্জা আব্বাস বলেন, কমিটি দেখে আওয়ামী লীগের মাথা খারাপ হয়ে গেছে। তাই তারা উল্টা-পাল্টা কথা বলছে।
‘অনেকের ধারণা হাবিব উন নবী খান সোহেলকে আপনি মেনে নিতে পারছেন না’ সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের উত্তরে আব্বাস বলেন, এটা আপনারা সোহেলের কাছ থেকে শুনুন। পরে এ প্রসঙ্গে সোহেল বলেন, মির্জা আব্বাস আমার বড় ভাই। আমাদের দুই ভাইয়ের মধ্যে কোনো বিরোধ নেই। ভাই আমাকে যথেষ্ট ভালোবাসেন।
এছাড়া আগামীকাল বেলা ১১টায় নবগঠিত কমিটি নিয়ে দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের মাজারে ফুলদিয়ে শ্রদ্ধা জানানেরও কথা রয়েছে।অনুষ্ঠানে নবগঠিত ঢাকা মহানগর বিএনপির আহ্বায় কমিটির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন
           

 
 
 
 
 
 

রিয়াদ প্রতিনিধি : গত ২১ জুলাই রিয়াদের হাফমুন রেষ্টুরেন্টের হল রুমে এক ইফতার মাহফিল ও আলেচনা সভায় এ কমিটি গঠিত হয়। সভায় সর্বসম্মতিক্রমে দৈনিক নয়া দিগন্তের সৌদি আরব প্রতিনিধি ও ফেনী মেইল ডটকমের প্রধান সম্পাদক সিরাজুল হক মানিককে আহবায়ক ও রাইজিং বিডির সৌদি আরব প্রতিনিধি লোকমান বিন নুরহাসেমকে সদস্য সচিব করে ১৭ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়।
কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন, প্রধান উপদেষ্টা শাহজাহান চঞ্চল (বিশিষ্ট লেখক ও বিটিভি প্রতিনিধি), উপদেষ্টা এবিএম বুলবুল (সম্পাদক, আরব বাংলা দর্পন) সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক শাহ পরান মিঠু (এসএ টিভি ও ঢাকা টাইমস্), যুগ্ম আহবায়ক আরিফুর রহমান (সময় টিভি), যুগ্ম আহবায়ক ফখরুল ইসলাম (সময়ের কণ্ঠস্বর), সদস্য আহম্মেদ আরিফ (শীর্ষ নিউজ), আমিনুল হুদা শাহিন (লেখক), সাঈদ মেরাজ (লেখক), মুহাম্মদ সেলিম উদ্দিন দিদার (কক্সবাজার নিউজ ও আমার পটিয়া), সাইফুল ইসলাম সাইমুম (কবি ও বাংলার জমিন), সাঈদুর রহমান (লেখক), রুহুল আমিন (লেখক), নুরুল ইসলাম (লেখক), ফখরুল ইসলাম (লেখক), সফি উদ্দিন সরকার (লেখক)।
অভিনন্দন: ফেনী মেইল ডট কম এর প্রধান সম্পাদক সিরাজুল হক মানিক রিয়াদ প্রবাসী রিপোটার্স ইউনিয়নের আহবায়ক নির্বাচিত হওয়ার মেইল পরিবারের পক্ষ থেকে প্রাণঢালা শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।               

 
 
 
 
 
 

লন্ডন ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সম্মানে আয়োজিত যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের ইফতার পার্টিতে আগে থেকেই জনপ্রতি ৬০ পাউন্ড ধার্য করে পাস ইস্যু করা হয়। কিন্তু ২০ জুলাই দুপুর থেকে বিশেষ কনসেশনে সেই পাস সমূহ ৫০ পাউন্ড করে আওয়ামীলীগ ইস্যু করে।একজন সাংবাদিক, একজন ক্যামেরাম্যান নিজেরা অন্য আরেকজন পরিচিত ও দলীয় নেতাদের সুপারিশের মাধ্যমে ৬০ পাউন্ড থেকে কমিয়ে ৫০ পাউন্ড করে পাস নিতে সক্ষম হন।লন্ডন ও আশে পাশের শহর থেকে আওয়ামীলীগের নেতা কর্মী যারা ইফতারে অংশ গ্রহণ করেছেন, তারা সকলেই ৬০ পাউন্ড করে পাস সংগ্রহ করে ভিতরে ঢুকেছেন। আর অন্যান্য অনেক নেতা ও শুভানুধ্যায়ী ডোনেশন হিসেবে ১০০০ থেকে ৩০০০ এবং মঞ্চে বসার সুযোগে এর পরিমাণ দ্বিগুণ ধার্য ছিলো- যা কেউ কেউ দিয়ে সে মতো স্থানও পেয়েছেন। সামনের টেবিলে বসার জন্য পাস ইস্যু ছিলো রীতিমতো লটারির ভাগ্য যাদের- তারা টাকা দিয়ে সংগ্রহ করতে পেরেছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যুক্তরাজ্য সফর উপলক্ষে আওয়ামীলীগ হোটেল পার্ক লেনের বল রুমে এক ইফতার পার্টির আয়োজন করে। অনানুষ্ঠানিকভাবে যদিও জানা গেছে ইফতার পার্টি উপলক্ষে ৫২ হাজার পাউন্ড সংগৃহীত হয়েছে, কিন্তু এর পরিমাণ দ্বিগুণ বলে জানা গেছে বিশ্বস্ত সূত্রে।

ইফতার পূর্ব আলোচনায় শেখ হাসিনা তার সরকারের উন্নয়নের ফিরিস্তি দিয়েছেন। বিদ্যুৎ তার আমলে ১১ হাজার মেগাওয়াটে উন্নীত হয়েছে বলে জানালেন।জিডিপি রেকর্ড পরিমাণ ৬% বৃদ্ধি পেয়েছে। গত নির্বাচনে ৪০% ভোটার ভোট দিয়ে তার সরকার গঠিত হয়েছে বলেও তিনি দাবী করেছেন।শেখ হাসিনা বলেছেন, তার সরকারই গণতান্ত্রিক সরকার। একই সাথে তিনি এও বলেছেন আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় এলে মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন হয়।

পার্কলেন হোটেল কানায় কানায় ভর্তি ছিলো নেতা কর্মীদের দ্বারা।অনুষ্ঠান মঞ্চে আরো উপস্থিত ছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমুদ আলী, যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগ সভাপতি সুলতান মাহমুদ শরীফ, আব্দুল গাফফার চৌধুরী, ব্রিটিশ সাংসদ কীথ ভাজ এমপি, ফিটজ প্যাট্রিক এমপি, রাশেদ সোহরাওয়ার্দী, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি সহ আরো অনেকেই।

এর আগে ১০ নম্বর ডাউনিং ষ্ট্রীটে শেখ হাসিনা ডেভিড ক্যামেরনের সাথে সাক্ষাত করেন। সেখান থেকে কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে বেরিয়ে আসার সময় যুক্তরাজ্য বিএনপি ও অন্যান্য অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ বিপরীত প্রান্ত থেকে কালো পতাকা ও বিক্ষোভ প্রদর্শন করতে থাকেন।গো ব্যাক শেখ হাসিনা শ্লোগানের সাথে অনেকে অসৌজন্যমূলক আচরণও করেন।বিপরীত দিকের রাস্তার বহু দূরে থেকেও কেউ কেউ শেখ হাসিনা সহ নিরাপত্তা বহরের গাড়ীতে নিজ পায়ের স্যান্ডেল জুতাও  ছুঁড়ে মারেন। 

 
 
 
 
 
 

ঢাকা,২২ জুলাই: গণমাধ্যমের স্বাধীনতা বন্ধের হুমকি দিয়ে সমাজকল্যাণ সৈয়দ মহসিন আলী বলেছেন, এমন আইন করা হচ্ছে যে ভবিষ্যতে আপনাদের (গণমাধ্যমের) কোন স্বাধীনতা থাকবে না।
রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ স্থান ভিক্ষুকমুক্ত করতে মঙ্গলবার সকালে সচিবালয়ে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে আয়োজিত এক আন্তঃমন্ত্রণালয় সভায় মন্ত্রী এ কথা বলেন।
গণমাধ্যমের কড়া সমালোচনা করে সমাজকল্যাণ মন্ত্রী বলেন, নারায়ণগঞ্জে খুনের ঘটনার বিভৎস চিত্র ইলেকট্রনিক মিডিয়াগুলো ৫ থেকে ১০ সেকেন্ড করে বারবার দেখাচ্ছে। এটা দেখিয়ে তারা মানুষকে উত্তেজিত করছে। তিনি বলেন, ৫ থেকে ৭টি লাশ নিয়ে টেলিভিশনগুলোতে যা ইচ্ছা তাই দেখানো হচ্ছে। আপনারা সিএনএন, বিবিসি দেখেন! বড় বড় ঘটনার বিভৎসতা কি সেখানে দেখানো হয়?
তিনি বলেন, পুলিশ আত্মত্যাগ করে সেটা নিয়ে খবর আসে না, অথচ খবর আসে সন্ত্রাসীদের পক্ষে।

টাঙ্গাইল থেকে পতিতা পল্লী উচ্ছেদের বিষয়ে মহসিন আলী বলেন, অস্ট্রেলিয়া সরকারের পক্ষ থেকে ফোনে এসেছে আমার কাছে। তারা জানতে চেয়েছে- তোমাদের ওখানে কেন ক্রমাগত এগুলো হচ্ছে।

মন্ত্রী বলেন, কি জবাব দেব এর। সৌদি আরবে যেমন শিরোশ্ছেদের আইন আছে, আমাদের এখানেও এটা করা দরকার। যারা এগুলো (পতিতা পল্লী) উচ্ছেদ করেছে সেখানে শরিয়া আইন জারি করে তাদের শিরোশ্ছেদ করা উচিত।               

 
 
 
 
 
 

ঢাকা, ২২ জুলাই  :
ভেজাল প্যারাসিটামল খেয়ে ৭৬ শিশু মৃত্যুর ঘটনায় ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান অ্যাডফ্লেম ফার্মাসিউটিক্যালসের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলার রায়ে ৩ জনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।মঙ্গলবার দুপুরে ঢাকার ড্রাগ আদালতের বিচারক মোঃ আবদুর রশিদ এই রায় ঘোষণা করেন।এর আগে ১৭ জুলাই মামলার রায় ঘোষণার কথা থাকলেও রায় প্রস্তুত না হওয়ায় বিচারক মোঃ আব্দুর রশিদ ২২ জুলাই মামলার রায়ের নতুন দিন ধার্য করেন।
১৯৯৩ সালের ২ জানুয়ারি ঢাকার ড্রাগ আদালতে মামলাটি দায়ের করে ওষুধ প্রশাসন অধিদফতর।
এ মামলার ৫ আসামির মধ্যে ৩ জন পলাতক রয়েছেন। পলাতক আসামিরা হলেন- কোম্পানির মালিকদের একজন আজফার পাশা, মাননিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তা মোঃ নোমান এবং নৃগেন্দ্র নাথ বালা।
কোম্পানির ব্যবস্থাপক মিজানুর রহমান ও পরিচালক ডা. হেলেন পাশা জামিনে রয়েছেন।
কোম্পানিটির তৈরি প্যারাসিটামল সিরাপে ডাই-ইথিলিন গ্লাইকলের উপস্থিতি ধরা পড়ায় ১৯৯৩ সালের ২ জানুয়ারি ঢাকার ড্রাগ আদালতে মামলা দায়ের করেন ওষুধ প্রশাসন অধিদফতরের পরিদর্শক আবুল খায়ের চৌধুরী। রায় ঘোষণার আগে মামলাটিতে মাত্র ৪ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়।
মামলায় বলা হয়, অ্যাডফ্লেম কোম্পানির প্যারাসিটমাল সিরাপে ডাই-ইথিলিন গ্লাইকল নামের এক ধরনের বিষাক্ত পদার্থের সন্ধান পাওয়া যায়।
মামলায় কোম্পানিটির ভেজাল প্যারাসিটামল সিরাপ পান করে ৭৬ শিশু মারা যাওয়ার অভিযোগ আনা হয়।               

 
 
 
 
 
 

নিউজ ডেস্ক : ফিলিস্তিনের গাজায় ইসরাইলি ইহুদি দখলদারদের অব্যাহত নৃশংস হামলায় নিরীহ মুসলমানদের লাশের সংখ্যা বাড়ছেই। সোমবার পর্যন্ত নিহতের সংখ্যা ৫৮০ জনে দাঁড়িয়েছে। আহতের সংখ্যা প্রায় ৩৩০০ জন।
ফিলিস্তিনিদের ওপর ১৫ দিন ধরে হামলা চালাচ্ছে ইসরায়েল। বিশ্ববাসীর নিন্দা ও যুদ্ধ বন্ধের আহ্বান উপেক্ষা করে দিন দিন হামলার মাত্রা বাড়াচ্ছে ইসরায়েলি বাহিনী। 
এদিকে, সোমবার জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের যুদ্ধ বিরতির আহ্বানকে প্রত্যাখ্যান করে পুরো গাজা দখলের হুমকি দিয়েছে তেল আবিব।
অপরদিকে গাজার ইসলামী প্রতিরোধ আন্দোলন হামাসের পাল্টা আক্রমণে ৪২ জন ইসরাইলি সৈন্য নিহত হয়েছে বলে দাবি করেছে সংগঠনটি। যদিও ইসরাইল ২৭ জনের মৃত্যুর কথা স্বীকার করেছে। অপরদিকে ইসরাইলি হামলায় এ পর্যন্ত ৩৪টি মসজিদসহ বহু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ধ্বংস হয়ে গেছে বলে জানা গেছে।
           

 
 
 
 
যোগাযোগ করুন..
01712 247 900

dainiksylhet@gmail.com